ইয়াবা ও গাঁজাসহ ২৪ ঘন্টায় নারীসহ আটক ৯

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীসহ বিভাগের সকল জেলা উপজেলায় অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে ইয়াবা বিক্রেতা ও সেবীদের সংখ্যা। প্রায় প্রতিদিনই ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক উদ্ধার, বিক্রেতা ও সেবীদের আটক করা হয়। তবুও বিক্রেতা ও সেবীদের সংখ্যা নিয়ন্ত্রনে আনা যাচ্ছে না। প্রশাসন ও প্রভাবশালীদের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ মদদে নতুন নতুন মাদক বিক্রেতা ও সেবী তৈরি হচ্ছে। এসব বিক্রেতা ও সেবীদের এ পথ থেকে ফিরিয়ে আনার জন্য কোন পূর্নবাসন প্রক্রিয়া কিংবা সংশোধনের সুযোগ সৃষ্টি না করার কারনে কোনভাবে নিয়ন্ত্রন হচ্ছে না। কোন মাদক বিক্রেতা ও সেবী ধরা পড়ার পর প্রশাসন তাদের সাথে এমন ব্যবহার করে যে, তারা এ পথ থেকে ফিরে আসার সুযোগ পায় না। যার কারনে অনেক মাদকসেবীরা জড়িয়ে পড়ছে মাদক বিক্রয়ের সাথে। যার কারনে এখন অলিতে-গলিতেসহ গ্রাম-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়েছে মাদকের বিষ। প্রতিদিনের মতো প্রশাসনের অভিযানে বিক্রেতা আটকসহ উদ্ধারও হচ্ছে মাদক। ধারাবাহিকতায় শনিবার রাত থেকে গতকাল রোববার রাত পর্যন্ত আইনশৃংখলারক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হয়েছে নারীসহ ৯ মাদক বিক্রেতা। কোতয়ালী মডেল থানা, মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) ও আর্মড ব্যাটেলিয়ন পুলিশ’র পৃথক ৮টি অভিযানে তারা আটক হয়। এসব অভিযানের সময় ২৮৮ পিচ ইয়াবা ও ৫শ’ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার হয়েছে। অনুসন্ধানে মাদক বিক্রেতা ও সেবীদের কাছ থেকে জানা গেছে, যে পরিমান মাদক উদ্ধার হয়েছে। তার চেয়ে ১০ গুন বেশি মাদক নগরীতে ক্রয় বিক্রয় হয়। আইনশৃংখলারক্ষাকারী বাহিনী ও প্রভাবশালী মহলের সাথে ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে বনিবনা না হলে কথিত অভিযানের নাটক হয়। উদ্ধার দেখানো হয় নামকাওয়াস্তের পরিমান মাদক।
অভিযানে আটককৃত মাদক ব্যবসায়ীরা হলো- নগরীর ১৪নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ আলেকান্দা জুমিরখান সড়কের হাওলাদার বাড়ির বাসিন্দা আব্দুল খালেক হাওলাদার ও রুশিয়া বেগম দম্পত্তির কণ্যা ইয়াবা সুন্দরি নামে পরিচিত আসমা আক্তার রুবিনা (২৪), ২৮নং ওয়ার্ডের শের-ই-বাংলা সড়কের ভাড়াটিয়া বাসিন্দা সদর উপজেলার চানপুরা ইউপি’র সারুখালী পাড়ের বাড়ীর মৃত আফসার হাওলাদারের ছেলে আলাউদ্দিন হাওলাদার (৫০), শের-ই-বাংলা সড়কের বাসিন্দা মৃত আব্দুর রহমান মুন্সির ছেলে রিপন মুন্সি ওরফে তেল রিপন (৩৮) ও তার স্ত্রী সেফালী বেগম (৩৪), কাউনিয়া বাগান বাড়ী রাশেদ ম্যানশন’র ভাড়াটিয়া বাসিন্দা ও গৌরনদীর আশোকাঠী গ্রামের মো. খোকন সরদারের ছেলে মো. হৃদয় সরদার (১৮), কাউনিয়া জালিয়া বাড়ির পোল এলাকার মৃত এ্যাড. চিত্ত রঞ্জন দাস’র ছেলে পঙ্কজ দাস (৩৮), সদর উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের খোস্তাখালী গ্রামের মো. ফারুক হাওলাদারের চেলে মো. সাব্বির হোসেন শিহাব ওরফে শাওন (২৭) ও বানারীপাড়া উপজেলার ইলুহার গ্রামের মো. তারেক হাওলাদারের ছেলে মো. জাহিদ হাওলাদার আবুল (২২)। মাদক সহ আটকের ঘটনায় ডিবি ও থানা পুলিশ বাদী হয়ে কোতয়ালী, বিমানবন্দর ও কাউনিয়া থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে পৃথক পৃথক ভাবে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, নগরীর জুমির খান সড়ক থেকে মামা-ভাগ্নীকে ২০০ পিস ইয়াবা সহ আটক করে।
এদিকে স্থানীয় একাধীক সূত্র জানিয়েছে, রুবিনা দীর্ঘ দিন ধরেই মাদক কেনা-বেচার সাথে জড়িত। মাদক ব্যবসায়ী চক্রের কাছে সে ইয়াবা সুন্দরি হিসেবে পরিচিত। ইয়াবা’র ব্যবসা ছাড়াও দেহ ব্যবহার অভিযোগও রয়েছে রুবিনার বিরুদ্ধে। অবশ্য ইতিপূর্বে তার এই মাদক ব্যবসার সাথে নগর পুলিশের একজন উপ-পরিদর্শকের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।
এদিকে গোয়েন্দা ডিবি পুলিশ কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে এসআই দেলোয়ার হোসেন এর নেতৃত্বে ডিবি’র একটি টিম ২৮নং ওয়ার্ডে শের-ই-বাংলা সড়কে মো. জাহাঙ্গীর হোসেন’র ভাড়াটিয়া আলাউদ্দিন হাওলাদারের টিন শেড বসত ঘরে অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় সেখান থেকে এক কেজী গাঁজা সহ আলাউদ্দিনকে আটক করা হয়। পরবর্তীতে একই এলাকায় দুপুর পৌনে ২টার দিকে স্থানীয় মো. রিপন মুন্সি ওরফে তেল রিপন এর বসত ঘরে অভিযান চালায় এসআই দেলোয়ারের নেতৃত্বাধীন ডিবি’র ওই টিম। এসময় ওই বাসা হতে দুইশত গ্রাম গাঁজা সহ তেল রিপন ও তার স্ত্রী শেফালী বেগমকে আটক করা হয়।
এছাড়া বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে নগরীর কাউনিয়া এলাকায় ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এর বাসার সামনে থেকে মো. হৃদয় সরদার নামের মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে ডিবি’র এসআই মো. মনির হোসেন’র নেতৃত্বাধীন টিম। এসময় তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ২শত গ্রাম গাঁজা। পরবর্তীতে এসআই মনির হোসেন এর নেতৃত্বাধীন ডিবির ওই অভিযানিক দলটি বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে কাউনিয়া মরকখোলার পুলের উত্তর পার্শ্বে অভিযান চালায়। এসময় সেখান থেকে ১০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ পঙ্কজ দাস নামের মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে তারা।
এছাড়াও গত শনিবার ডিবি’র এসআই আশীষ পাল এর নেতৃত্বে নগরীর ২৫নং ওয়ার্ডের রূপাতলী বটতলা এলাকায় অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় সেখান থেকে সাব্বির হোসেন শিহাব ওরফে শাওন নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ১৩ পিস ইয়াবা সহ আটক করা হয়। ছাড়াও ডিবি’র একই টিম নগরীর ১৪নং ওয়ার্ডের কালুশাহ সড়কে অভিযান চালিয়ে মো. জাহিদ হাওলাদার আবুল নামে একজনকে ৩শ গ্রাম গাঁজা সহ আটক করা হয়।
এদিকে পটুয়াখালী সদর থানাধীন ছোট বিঘাই কাটাখালী খেয়াঘাট এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১০ম আর্মড পুলিশ ব্যাটেলিয়ন এর অপস্ এন্ড ইন্টিলিজেন্স উইং এর একটি টিম। গত শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে এপিবিএন’র পরিদর্শক (নিঃ) রাজু আহম্মেদ এর নেতৃত্বাধীন টিম ওই এলাকা থেকে ৬৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ মো. আলাউদ্দিন (৪৬) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। আলাউদ্দিন পটুয়াখালী সদর থানাধীন মাদারবুনিয়া গ্রামের মকবুল হাওলাদারের ছেলে। এই ঘটনায় পটুয়াখালী থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।