আ’লীগের মহানগর শাখার পূর্নাঙ্গ বা আহ্বায়ক কমিটি

রুবেল খান॥ আ’লীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের পূর্বেই মহানগরের কমিটি ঘোষনা হচ্ছে। কাউন্সিলের স্বার্থে পূর্ণাঙ্গ না হলেও আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হবে। ইতোমধ্যে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ে জ্যেষ্ঠ নেতাদের চূড়ান্ত রূপ রেখা দিয়ে দিয়েছেন। সেই সাথে আসছে সেপ্টেম্বরেই আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষনা হতে পারে বহু কাংখিত বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি। এজন্য কমিটি’র সম্ভাব্য পদ পদবিও অনেকটা নিশ্চিত করা হয়েছে। এখন শুধু যাচাই বাছাই’র পালা।
এদিকে বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কিংবা পূর্ণাঙ্গ কমিটি যাই হোক দুটিতেই থাকছে চমক। নতুন নেতৃত্বের পাশাপাশি স্থান পাবেন তৃনমূলের নেতা-কর্মীরা। সর্বোপরি তরুন নেতৃত্বের হাতে অর্পন করা হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি।
সূত্রমতে, বিসিসি’র সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরণের মৃত্যুতে শুণ্য হয়ে যায় বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ। তবে ২০১৩ সালের কাউন্সিলে নির্বাচিত শওকত হোসেন হিরণ এবং এ্যাড. আফজালুল করিম’র দুই সদস্য বিশিষ্ট কমিটি কেন্দ্র থেকে এখন পর্যন্ত অনুমোদন দেয়া হয়নি।
এদিকে বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগে সভাপতি না থাকায় সাংগঠনিক ভিত্তি একেবারেই ভেঙ্গে পড়ে। যোগাযোগ রক্ষা এবং সাংগঠনিক দুর্বলতা সহ নানা কারনে ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা সরে দাড়ান নগর আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আফজালুল করিম’র পাশ থেকে। যে কারনে একটি সময় ছন্নছাড়া হয়ে পড়ে মহানগর আওয়ামী লীগ।
এমন পরিস্থিতিতে বরিশাল সদর আসনে উপ-নির্বাচনে বিজয়ী হিরনপতœী জেবুন্নেছা আফরোজ ঘর থেকে বেরিয়ে স্বামীর রাজনীতির হাল ধরার চেষ্টা করেন। এমন পরিস্থিতিতে হিরন পন্থিদের নিয়ে তিনি স্বামীর রেখে যাওয়া মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ পেতে বেকে বসেন।
তবে সভাপতি পদে তার পাশাপাশি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এবং সদর আসনে আওয়ামী লীগের টিকেট নিয়ে নির্বাচন করা কর্ণেল (অব) জাহিদ ফারুক শামীমও আট ঘাট বেধে নেমে পড়েন রাজনীতির মাঠে। তার সাথে এখন আবার যোগ হয়েছেন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা মাহাবুব উদ্দিন আহম্মেদ বীর বিক্রম।
এদিকে সাধারন সম্পাদক পদ নিয়ে এক প্রকার লড়াই করছেন ৩০ ওয়ার্ড এবং থানা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। গুরুত্বপূর্ণ এই পদের বিপরীতে অর্ধ ডজন প্রার্থী থাকলেও সাংগঠনিক কার্যক্রমের দিক থেকে বহু অংশে এগিয়ে আছেন সাবেক চীফ হুইপ এবং বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ-এমপি’র জ্যেষ্ঠ পুত্র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। বরিশালের রাজনীতিতে তিনি নতুন হলেও খুব অল্প সময়ের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের এই তরুন নেতা। যে কারনে মাঠ পর্যায়ের রাজনীতিতে দুর্বল হয়ে পড়া হিরণ পন্থিদের মধ্যে অনেকেই স্থান করে নেন সাদিক কোড়ামে। সব মিলিয়ে বর্তমান সময়ে আ’লীগের রাজনীতির মাঠে সাদিক আব্দুল্লাহ’র বিকল্প ভাবছেন না এখানকার জ্যেষ্ঠ এবং তৃনমূলের নেতা-কর্মীরা। আর এজন্য ইতোমধ্যে সাদিক আব্দুল্লাহকে সাধারন সম্পাদক করে মহানগর আ’লীগের কমিটি ঘোষনার দাবীতে কেন্দ্রের কাছে ৩০ ওয়ার্ডের নেতাদের স্বাক্ষরিত আবেদনের পাশাপাশি তারা স্ব-শরীরেও যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।
এদিকে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় বেশ কয়েকজন দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি নিয়ে জল্পনা আর কল্পনার অবসন ঘটছে খুব শিঘ্রই। কেননা শোকের মাস শেষ হয়ে আগামী সেপ্টেম্বরেই মহানগর আওয়ামী লীগে নতুন কমিটি ঘোষনা করা হচ্ছে। আর দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা নিজেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন। কেননা আগামী ডিসেম্বরেই আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল। এ কাউন্সিলের স্বার্থে ইতোমধ্যে কমিটির সম্ভাব্য প্রার্থীও চূড়ান্ত হয়েছে। কোন প্রকার ভোটাভোটি ছাড়াই পূর্নাঙ্গ অথবা আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে দিবেন কেন্দ্রীয় নেতারা। বিশেষ করে আহ্বায়ক কমিটি গঠনের কথাই বেশি শোনা যাচ্ছে।
কেন্দ্রীয় সূত্র জানিয়েছেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়া হলে সেখানে সদর আসনের এমপি জেবুন্নেছা আফরোজকে সভাপতি দেয়া হতে পারে। এছাড়া সাধারন সম্পাদক করা হবে সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকে। এছাড়া আহ্বায়ক কমিটিতে আহ্বায়ক পদে দু’জনের নাম শোনা যাচ্ছে। যার মধ্যে একজন কর্নেল (অব) জাহিদ ফারুক শামীম এবং সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা মাহাবুব উদ্দিন আহম্মেদ বীর বিক্রম। তবে এদের মধ্যে কর্ণেল (অব) জাহিদ ফারুক শামীমের নামটি বিবেচনায় রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে যেই বাদ পড়বে তারা নতুন কমিটিতে সদস্য পদও পাবেন না।
এছাড়া ৫ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক পদে এমপি জেবুন্নেছা আফরোজ, সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাড. আফজালুল করিম, বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এ্যাড. একেএম জাহাঙ্গীরকে রাখা হবে। তবে আহ্বায়ক কমিটিতে যুবলীগ মহানগর যুগ্ম আহ্বায়ক মাহামুদুল হক খান মামুনকে রাখার বিষয়ে মতামত প্রকাশ করেছেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।
জানতে চাইলে বরিশাল বিভাগের দায়িত্বে থাকা আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. বাহাউদ্দিন নাসিম মুঠো ফোনে জানান, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটির বিষয়টি প্রত্যক্ষ করছেন। নতুন কমিটিতে তৃনমূল এবং সাংগঠনিক নেতৃত্বের স্থান দেয়া হচ্ছে। তবে আগামী সেপ্টেম্বরে কমিটি ঘোষনার বিষয়টি প্রকাশ না করে তিনি বলেন, আগামী কাউন্সিলের আগেই বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষনা হবে।