আবাসিক হোটেল থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বান্দ রোডের একটি আবাসিক হোটেল থেকে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাতে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে আবাসিক হোটেল ‘খান’ থেকে লাশটি উদ্ধার করে কোতয়ালি থানা পুলিশ। উদ্ধার হওয়া লাশটি উজিরপুর উপজেলার শোলক গ্রামের মৃত সুফিয়ান মোল্লার ছেলে মোঃ মামুন মোল্লা(৩০) এর বলে পলিশ নিশ্চিত করেছে। গতকাল বুধবার ময়না তদন্ত শেষে লাশটি পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে মৃত্যুর সঠিক কারন জানা যায়নি। কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাখাওয়ান হোসেন জানান, মঙ্গলবার রাতে শেবাচিম হাসপাতালের সামনে আবাসিক হোটেল ‘খান’ এর দ্বিতীয় তলায় ৪নং কক্ষে এক বোর্ডারের সন্দেহজনক অবস্থানের কথা জানিয়ে পুলিশকে সংবাদ দেয়। পরে পুলিশের টিম ঘটনাস্থলে পৌছে রুমের দরজা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে। এ সময় দেখতে পান মামুন নামের ব্যক্তির মৃত দেহ শয্যার উপরে পড়ে রয়েছে। তখন পুলিশ সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য শেবাচিমের মর্গে প্রেরণ করে। স্বজনদের বরাত দিয়ে কোতয়ালি পুলিশ আরো জানায়, মামুনের সাথে পরিবারের ভালো সম্পর্ক ছিলনা। মামুন বিভিন্ন ব্যাংক থেকে কয়েক লক্ষ টাকা লোন নেয়। এছাড়া বাহিরের লোকজন তার কাছে অনেক টাকা পায়। তার মধ্যে ছোট মেয়ে প্রেম করে পালিয়ে যায়। এসব কারনে মামুন পালিয়ে বেড়াতেন। এরই অংশ হিসেবে মামুন অনেকদিন যাবৎ বান্দ রোডের হোটেল খানে ভাড়া থাকতেন। এসব কারণে মানুসিক ভাবে বিকারগ্রস্ত হয়ে হৃদ যন্তের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মামুনের মৃত্যু হতে পারে বলে ধারনা করছেন পুলিশ। তবে ময়না তদন্তে প্রাথমিক ভাবে হত্যা বা আত্মহত্যার প্রমান পাওয়া যায়নি বলে ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাঃ আক্তারুজ্জামান তালুকদার জানিয়েছেন।