আজ থেকে বরিশাল-লক্ষীপুর রুটে চলবে এমভি পারিজাত

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল-লক্ষীপুর রুটের এমভি পারিজাতের চলাচলের অনুমতি দিয়েছেন বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান। আজ থেকে এই নৌ যান শুরু হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এতে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রাম থেকে ঈদে যাত্রীরা নিরাপদ যাত্রা করতে পারবে। গত ৪ বছর ধরে এই রুটের যাত্রীরা দেশী যন্ত্র চালিত নৌকা ও ট্রলারে উত্তাল মেঘনা পাড়ি দিতো।
সূত্র জানায়, বরিশাল-চট্টগ্রাম রুটের ১৯৬৪ সাল থেকে চলাচল করা বিআইডব্লিউটিএ’র ষ্টিমার সার্ভিস ২০১১ সালের জুন মাসে বন্ধ করে দেয়া হয়। এ রুটের একাধিক নৌযান মেরামত ও পুর্নবাসন করা হলেও পূণর্বহালের কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এমনকি নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর ঘোষাণা বিআইডব্লিউটিএ আমলে নেয়নি।
বরিশালÑলক্ষ্মীপুর রুটে দুটি সী-ট্রাকের মাধ্যমে যাত্রী পরিবহনের কথা থাকলেও গত প্রায় এক বছর ধরে একটি অচলবস্থায় পড়ে আছে। রহস্যজনক কারনে নৌযানটির প্রয়োজনীয় যন্ত্র প্রকৌশলী ও মাষ্টার নিয়োগ করেনি। একটি মাত্র সীÑট্রাক বরিশাল থেকে লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীর হাটে যাচ্ছে । সেখান থেকে যাত্রীরা সড়ক পথে চট্ট্রগাম ও কুমিল্লা অঞ্চলের বিভিন্ন গন্তব্যে পৌছাচ্ছে। তবে ঈদকে সামনে রেখে চট্টগ্রাম অঞ্চলের হাজার-হাজার মানুষের জন্য পরিস্থিতি আরোচ্ছ ঝুঁকিপূর্ণ। ২০০ আসনের সরকারী সী-ট্রাকে তিনগুন যাত্রী বহন করে। আরো কয়েকগুন যাত্রী সীÑট্রাকে উঠতে না পেরে বাধ্য হয়েই লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীর ঘাট থেকে দেশী যন্ত্র চালিত নৌকা সহ ট্রলারে করে ভোলায় পৌছে। সেখান থেকে বরিশাল সহ বিভিন্ন গন্তব্যে যাত্রা করছে।
নৌযান সংকটের কথা বলে বরিশালÑচট্টগ্রাম রুটটি বন্ধ করে দেয়া হলেও ৩টি সচল নৌযান রয়েছে। এমনকি একাধিক সী-ট্রাক অলস পড়ে থাকলেও বরিশালÑচট্টগ্রাম রুটের সংক্ষিপ্ত নৌ-পথ লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর হাট রুটে চালানো হচ্ছে না। ওই রুটে চলাচলকারী একমাত্র সী-ট্রাকের ইজারাদারের ব্যবসায় সহায়তা করার জন্য কাজ করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।
বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমোরেড এম মোজাম্মেল হক বরিশালের মজু চৌধুরীর হাট রুটে চলাচলের জন্য নির্মিত নিরাপদ নৌযান ‘এমভি পারিজাত’এর সময়সূচী দেয়ার নির্দেশ দেন। আজ থেকেই নৌযানটি যাত্রী বরিশালÑলক্ষ্মীপুর রুটে যাত্রী পরিবহন শুরু করবে।
বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক জানান, আবেদনকারী নৌযানটির চলাচলে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে একটি মহল উচ্চ আদালতে মামলা করে। তা মঞ্জুর করা হয়নি। বিষয়টি নিয়ে যেহেতু কিছু আইনী জটিলতা থাকায় পরামর্শ গ্রহন সহ সব কিছু বিবেচনা করে পদক্ষেপ নিতে সময় লেগেছে।