আজ জাতীয় শোক দিবস

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ আজ শোকাবহ ১৫ই আগস্ট। ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট কালো রাতে রাজধানীর মিন্টো রোডের বাস ভবনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যাকান্ডের শিকার হন। সেই রাতের নারকীয় হত্যাকান্ডে কৃষককূলের নয়নমনি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার নাতী শিশু সুকান্ত আব্দুল্লাহ বাবু’র রেহাই পায়নি। এর পর থেকেই বছরের ১৫ই আগস্ট দিনটিকে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতিয় শোক দিবস হিসেবে পালন হয়ে আসছে। প্রতি বছরের ন্যায় আগস্টের শুরু থেকেই শোকের আবরনে ঢাকা পড়ে মহানগরী এলাকা। বিশেষ করে সদর রোড বিবির পুকুর পাড়, দলীয় কার্যালয় এবং সিটি কর্পোরেশনের নগর ভবনের দিকে তাকালেই ১৫ই আগস্টের সেই ভয়াল রাতে বঙ্গবন্ধু সহ অন্যান্য শহীদদের কারোর শোকের আবহ ভেসে উঠছে। শোক প্রকাশ করে ওইসব স্থানে সরকার দলীয় নেতা-কর্মী ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শোকের ব্যানার, ফেষ্টুন ও কালো তোড়ন নির্মান করেছে। শুধু সদর রোড নয়, নগরীর প্রত্যেকটি ওয়ার্ড, মহল্লা এবং গুরুত্বপূর্ণ সড়কের উপরে নির্মান হয়েছে শোকের তোড়ন। ব্যানার এবং তোড়নে শোভা পেয়েছে ১৫ই আগস্টের সেই ভয়ালো রাতে বুলেটের আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত বঙ্গবন্ধু’র রক্তমাখা শরীর, চশমা সহ বিভিন্ন স্মৃতিবিজরিত চিত্র।
এদিকে শুধুমাত্র পোষ্টার ব্যানার এর তোড়ন নির্মানই নয়, বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উদযাপনে আওয়ামী লীগ এর পাশাপাশি সরকারি এবং বেসরকারি ভাবে গ্রহন করা হয়েছে শোক দিবসের নানা কর্মসূচি। প্রশাসন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবা প্রতিষ্ঠান, সমাজসেবা অধিদপ্তর সহ প্রায় প্রত্যেকটি দপ্তরেই দিনটি যথাযথ ভাবে পালনে পৃথক পৃথক ভাবে কর্মসূচি গ্রহন করেছেন। যার মধ্যে রয়েছে- শোক সভা, শোক র‌্যালী, পুষ্পার্ঘ অর্পনের মাধ্যমে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন, দোয়া-মোনাজাত, মিলাদ-মাহফিল, কাঙ্গালী ভোজ ও কোরআন খতম, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা সহ নানান কর্মসূচি। শোকের মাস আগস্ট এর প্রথম দিন থেকেই শেষ দিন পর্যন্ত মাস ব্যাপী কর্মসূচিও রয়েছে। এদিকে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে বরিশাল জেলা ও বিভাগীয় প্রশাসন তিন দিন ব্যাপী কর্মসূচি গ্রহন করেছেন। কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ ১৫ই আগস্ট সকাল ৮টায় নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পার্ঘ অর্পনের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন বিভাগীয় কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ, জেলা প্রশাসক, আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন, জেলা পুলিশ, আরআরএফ, ফায়ার সার্ভিস সহ প্রশাসনের অন্যান্য সংস্থার কর্মকর্তাবৃন্দ।
এছাড়াও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আলোচনা সভা, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, প্রামান্যচিত্র প্রদশর্ণী, মসজিদে মসজিদে দিলাদ ও দোয়া-মোনাজাত, ধর্মীও উপাসনালয়ে প্রার্থনা সহ নানা কর্মসূচি রয়েছে। এর বাইরে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শোক সভা, শিশু সদনে উন্নত মানের খাবার পরিবেশন সহ আরো নানা কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে।
এদিকে আজ ১৫ই আগস্ট দিনটি উদযাপনে কর্মসূচি গ্রহন করেছে সরকার দলীয় সংগঠন আওয়ামীলীগ। সকালে সূর্য্যদয় থেকে দিনভর নানা কর্মসূচি পারন করবেন বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ। কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকালে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও কালোপতাকা উত্তোলন, দিনভর কোরআন খানি, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পন, শোক র‌্যালী, আলোচনা সভা এবং দোয়া- মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া মহানগরীর ওয়ার্ড এবং জেলার আওতাধীন উপজেলা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতিয় শোক দিবস উদযাপনে নানা কর্মসূচি গ্রহন করেছে।
এর আগেই শোক দিবসের কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল সোমবার শোক দিবস উপলক্ষে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে অনুষ্ঠিত হয়েছে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। শিক্ষক সমিতির আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় শোক সভা ও দোয়া-মোনাজাত। এছাড়াও সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান শোক দিবসের কর্মসূচি পালন করেছে।