আইনজীবী সহকারি সমিতির নির্বাচন কমিশনারকে শোকজ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরিশাল আইনজীবী সহকারি সমিতির নির্বাচনে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারির নির্দেশ দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ ৩জনকে কারণ দর্শানো নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গতকাল বরিশাল ১ম যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এ আদেশ দেন। আদালত সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল আইনজীবী সহকারি সমিতির নির্বাচন-২০১৬ উপলক্ষে গত ২ ফেব্র”য়ারি নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করেন। সেই হিসেবে ভোটার হওয়ার শেষ দিন ১১ ফেব্র”য়ারি। খসরা ভোটার তালিকা প্রদান ১৪ ফেব্র”য়ারি। চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রদান ১৫ ফেব্র”য়ারি এবং মনোনয়ন বিক্রি ওই দিনই। মনোনয়ন দাখিল ১৬ ফেব্র”য়ারি। মনোনয়ন বাছাই ১৭ ফেব্র”য়ারি। মনোনয়ন প্রত্যাহার ১৮ ফেব্র”য়ারি। নির্বাচন ২৯ ফেব্র”য়ারি সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে।
নির্বাচনে সভাপতি পদের বিপরীতে মনোনয়ন ক্রয় করেন নওরোজ আলম। মনোনয়ন বাছাইয়ের দুই দিন আগে বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাড. আনিচ উদ্দিন আহম্মেদ সহিদ গত ১৬ ফেব্র”য়ারি বাদীর প্রতি অবৈধভাবে লাইসেন্স প্রদান ও চাঁদা আদায়ের রশিদ প্রদানের অভিযোগ এনে তার সদস্য পদ স্থগিত ও ২ দিনের কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেন। কারণ দর্শানোর জবাব ১৭ ফেব্র”য়ারি দেয়া সত্ত্বেও বাদীর মনোনয়ন পত্র বাতিল করেন নির্বাচন কমিশন। বিবাদীরা যোগসাজশে লাভবান হওয়ার জন্যে বাদীর মনোনয়ন পত্র বাতিল করেন। এ ঘটনায় গতকাল নওরোজ আলম বাদী হয়ে ৬ জনকে বিবাদি করে মামলা দায়ের করলে আদালত এ আদেশ দেন। মামলার বিবাদিরা হলেন, বরিশাল আইনজীবী সমিতির সভাপতি, আইনজীবী সহকারী সমিতির প্রধান নির্বাচন কমিশনার, সহকারি নির্বাচন কমিশনার দুই জন, ও বর্তমান আইনজীবী সহকারি সমিতির সভাপতি ও সম্পাদক। আদালত প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ দুইজনকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেন।