অপ্রাপ্ত কন্যার প্রেম পলায়নে অপহরণ মামলা আদালতে অস্বীকার

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বাকেরগঞ্জ মধ্য নিয়ামতিতে বাবার অপহরণ অভিযোগের মামলা অস্বীকার করেছে মেয়ে। মামলার প্রেক্ষিতে গতকাল মেয়ে ও মামলার উল্লেখিত অভিযুক্তরা আদালতে হাজির হয়ে জবানবন্দী দিলে মেয়ে নাবালিকা হওয়ায় তাকে সেইফ হোমে ও ছেলেকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেয় আদালত। নারী ও শিশু নির্যাতন অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোঃ মুজিবুর রহমান এ নির্দেশ দেন। জেলে প্রেরণকৃত জুয়েল শরীফ মঠবাড়িয়া পশ্চিম বাদুরতলার বাসিন্দা নুর ইসলাম শরীফের পুত্র ও সেইফ হোমে যাওয়া সালমা আক্তার বাকেরগঞ্জ মধ্য নিয়ামতির নজরুল সিকদারের মেয়ে। নজরুল সিকদারের দায়ের করা অভিযোগে উল্লেখ করেন জুয়েল বিভিন্ন সময় সালমাকে উত্যক্ত করত। পরে ২০১৩ সালের ২৯ নভেম্বর সালমা পানি আনতে গেলে জুয়েল শরীফ তার ভাই সোহাগ শরীফ সহ আরও ২জন সালমাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই বছরের ২ডিসেম্বর বাকেরগঞ্জ থানায় সাধারন ডায়েরী ও গত ২৩ ফেব্রুয়ারী উল্লেখিত সহ ৪ জনকে অভিযুক্ত করে মামলা করা হয়। এর প্রেক্ষিতে থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মুহাম্মদ এনামুল হাসান সরসী গত ৭ জুলাই মামলায় উল্লেখিত ৪ জনকে অভিযুক্ত করেই চার্জশীট জমা দেয়। এর ধারাবাহিকতায় গতকাল সোহাগ শরীফ ছাড়া অভিযুক্তরা সবাই আদালতে হাজির হলে বিচারক জুয়েল ও সালমাকে ওই আদেশ দেন এবং বাকি ২জনকে জামিন দেন।