অপচিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগে ভুয়া চিকিৎসক আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ ভুয়া চিকিৎসকের অপচিকিৎসায় আলী আকবর নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। নিজ গ্রামে অপচিকিৎসার শিকার হয়ে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি হলে গতকাল মঙ্গলবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত রোগী আলী আকবর বরগুনার তালতলী উপজেলার মালিপাড়া গ্রামের সিরাজ উদ্দিন’র ছেলে।
এদিকে অপচিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালে দেখতে এসে স্থানীয়দের রোষানলে পড়তে হয় ভুয়া ডাক্তার মো. মনিরুল আলম (৩৫) কে। পরে তাকে উত্তম মাধ্যম দিয়ে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। আটককৃত ভুয়া ডাক্তার মনিরুল আলম বরগুনার তালতলী গ্রামের শামশুল আলম’র ছেলে।
মুমূর্ষ রোগী আলী আকবর এর স্বজনরা জানায়, মো. মনিরুল আলম দীর্ঘ বছর যাবত তাদের গ্রামে সাধারন মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছে। তালতলির মালিপাড়া গ্রামে তার একটি ক্লিনিক এবং চেম্বার রয়েছে।
তারা জানান, মনিরুল আলম ভুয়া ডাক্তার হলেও চেম্বারের সামনের সাইন বোর্ড ও ভিজিটিং কার্ডে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএইচএনএস এবং হোমিও প্যাথিক’র উপর ডিএইচএমএল ভুয়া ডিগ্রি লাগিয়ে রেখেছে। তাছাড়া পদবি হোমিও চিকিৎসক ব্যবহার কলেও তিনি তার অবৈধ ক্লিনিকে অস্ত্রপচারও করে থাকেন বলে অভিযোগ মৃত ব্যক্তির পরিবারের।
স্বজনরা জানায়, গত ২৭ জুলাই সোমবার সকাল ১০টায় ২০ হাজার টাকা চুক্তিতে আলী আকবর’র হারনিয়ার অস্ত্রপচার করে। এসময় রোগীর এক স্বজন অপারেশন থিয়েটারে তাকে সহযোগিতা করে। কিন্তু সেখানে ছিলো না অপারেশনের অস্ত্রপাতি, নার্স বা অজ্ঞান ডাক্তার।
এদিকে অস্ত্রপচারের প্রায় চার ঘন্টা পর পর্যবেক্ষনে থাকা অবস্থায় দেখতে পান রোগীর পেট ফুলে গেছে এবং প্রচন্ড ব্যাথায় কাতরাচ্ছে। এক পর্যায় তার অবস্থা মূমুর্ষ হয়ে পড়লে ভুয়া ডাক্তারের ক্লিনিক থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয় আলী আকবরকে। সেখানে অবস্থার অবনতী ঘটলে প্রথমে পটুয়ালী এবং পরবর্তীতে বরিশাল শে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি করা হয়। সেই সাথে ঘটনাটি ধামা চাপা দিতে ভুয়া ডাক্তার মনির রোগীর সাথে শেবাচিম হাসপাতালে চলে আসে।
শেবাচিমে রোগীর অবস্থা আশংকাজনক দেখে জরুরী তার অপারেশনের জন্য স্বজনদের ওষুধ নিয়ে আসতে বলে। এসময় ভুয়া ডাক্তার মনির ওষুধ কিনে না দিয়ে পালাবার চেষ্টা করলে স্বজনদের রোষানলে পড়ে সে। এক পর্যায় গতকাল বিষয়টি প্রকাশ পেলে হাসপাতালের চিকিৎসক এবং সংবাদকর্মীদের সহযোগিতায় স্বজনরা ভুয়া ডাক্তার মনিরুল কে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।