অনিয়ম এবং দুর্নীতির দায়ে নগরীর চলমান দুইটি উন্নয়ন কাজ বন্ধ করলেন মেয়র কামাল

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ অনিয়ম এবং দুর্নীতির দায়ে নগরীর চলমান দুইটি উন্নয়ন কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আহসান হাবিব কামাল। সেই সাথে আরো একটি কাজের ত্রুটি পেয়ে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের সতর্ক করার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীদের দায়িত্বশীল হওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। গতকাল সোমবার দিনভর নগরীর বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিদর্শনে গিয়ে এই নির্দেশনা দেন মেয়র।
নির্মান কাজ বন্ধ করে দেয়া প্রকল্পগুলো হলো- নগরীর রুইয়ার পুল ও নগরীর আমানতগঞ্জ টিভি হাসপাতালের পুকুরের সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ। এছাড়া কাজে অনিয়মের জন্য সতর্ক করা প্রকল্পটি হলো নগরীর স্বাধীনতা পার্ক সংলগ্ন রাস্তার উন্নয়ন কাজ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আলহাজ্ব আব্দুল মোতালেব হোসেন।
তিনি জানান, নবগ্রাম রোডের রুইয়ার পোলের কাজ গত এক বছরের বেশি সময় আগে শুরু হয়েছে। কিন্তু চুক্তি অনুযায়ী কাজের মেয়াদ শেষ হলেও এখন পর্যন্ত তা সম্পন্ন করতে পারেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তাছাড়া বর্তমানে চলমান কাজে অনিয়ম এবং দুর্নীতির প্রমান পেয়েছেন মেয়র। বিশেষ করে নিম্নমানের বালু এবং পাথর দিয়ে করা হচ্ছে নির্মান কাজ। এজন্য পরিদর্শনে গিয়ে ব্রিজের নির্মান কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন মেয়র। নিম্নমানের নির্মান সামগ্রী বাদ দিয়ে ওয়ার্ক অর্ডারে দেয়া বালু এবং পাথর দিয়ে নির্মান কাজ শুরুর নির্দেশ দেন মেয়র। সঠিক মানের নির্মান সামগ্রী সরবরাহের আগে নির্মান কাজ বন্ধ থাকবে বলে মেয়র নির্দেশ দিয়েছেন।
এদিকে মেয়র মো. আহসান হাবিব কামাল পরিদর্শন করেছেন টিভি হাসপাতালের পুকুর পাড়ের প্রাচীর নির্মান কাজ। সেখানে গিয়েও দুর্নীতি এবং অনিয়মের প্রমান পান মেয়র। পিলার নির্মানের ক্ষেত্রে তলদেশে বালু ফেলে পরে ইট দেয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু সেখানে বালু না ফেলেই শুধুমাত্র ইট বিছানো হয়েছে। তাও যে ইট বিছানো হচ্ছে তা মেয়াদ উত্তীর্ন নিম্নমানের ইট। এসব কারনে ওই কাজটিও বন্ধ করে দিয়েছেন মেয়র।
অপরদিকে আমানতগঞ্জ স্বাধীনতা পার্ক সংলগ্ন সড়কে সংস্কার কাজের পরির্দশনে যান মেয়র। সেখানেও কাজে নিম্নমান দেকে ঠিকাদারকে ভৎর্সনা করেছেন মেয়র। তবে বেলতলা সড়কের নির্মান কাজ পরিদর্শনে গিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন মেয়র। ওই রাস্তার উন্নয়ন এবং রাস্তা পরিস্কারের জন্য এলাকাবাসিকে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে মেয়র মো. আহসান হাবিব কামাল বলেন, এক একজন ঠিকাদার ২০ থেকে ২৫ পার্সেন্টে কমে কাজ নিয়ে উন্নয়ন কাজের ক্ষেত্রে দুর্নীতি এবং অনিয়ম করছে। কিন্তু এর দায় পড়ছে সরকার এবং মেয়র’র উপর। এমন অনিয়ম এবং দুর্নীতির মাধ্যমে উন্নয়ন করতে দেয়া হবে না। অনিয়ম পেলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের দরপত্র বাতিল করে প্রয়োজনে নতুন করে টেন্ডার দিয়ে কাজ করানো হবে বলেও হুশিয়ারী দেন মেয়র।