জেলেদের দাবী প্রভাবশালীরা যেন মাছ ধরতে না পারে | | ajkerparibartan.com জেলেদের দাবী প্রভাবশালীরা যেন মাছ ধরতে না পারে – ajkerparibartan.com
জেলেদের দাবী প্রভাবশালীরা যেন মাছ ধরতে না পারে

3:24 pm , October 10, 2019

মোঃ আফজাল হোসেন, ভোলা ॥ মা ইলিশ রক্ষায় আগামী ২২ দিনের জন্য মেঘনা ও তেতুলিয়া নদীতে সকল ধরনের মাছ ধরাকে নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য অধিদপ্তর। তবে আইনকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সকল জেলে ও ব্যবসায়ীদের দাবী সব ধরনের জাল যেন নদী থেকে তুলে দেয়া হয়। প্রভাব খাটিয়ে যেন কেউ মাছ ধরতে না পারে। আ্ইন যেন সবার জন্য সমান হয়। মা ইলিশ রক্ষা ও জাটকা ধরা বন্ধ করা কি দরকার। এতে আমরা কি উপকৃত হব ? এমন প্রশ্নে ছিলো ভোলার এক সাধারন জেলে মোঃ আব্দুল বারেক এর কাছে,তিনি বল্লেন,উপরে যদি সব জাইল্ল্যা (জেলে),বাঁধা,মশারীসহ সব নিষিদ্ধ জাল যদি তুলে দেয়া যায় তাতে জেলেরা এই অভিযানে লাভবান হয় লোকসান হয় না। তবে তিনি অভিযোগ করে বলেন,জাল বাওয়ায় (জাল ফেলতে সহযোগীতা করা) বড় বড় মিয়রা,যাতে ছোট ছোট ইলিশ পোনা মাইরা হালায়। বড় মিয়াগো পকেটে টাকা যায়,তা হয় না। মাছ না ধরলে সবাইর লাইগ্যাই না। এভাবেই সাধারন ঐ জেলে তার প্রক্রিয়া ব্যাক্ত করেন,মা ইলিশ রক্ষায় ২২দিন মাছ ধরা বন্ধ নিয়ে। আগামী ৩০অক্টোবর পর্যন্ত নদীতে জাল হাতে নামতে পারবে না কোন জেলে। মা ইলিশ রক্ষা অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে জেলেরা বলেন,ইলিশ পড়েছে সাগড়ে। অতিমাত্রায় স্রোতের ফলে ইলিশ উপড়ে উঠতে পারেনি। ইলিশ ধরার উপর নির্ভরশীল এসব জেলেরা আরো বলেন, সংসার চালাতে তাদের কস্টের কথা। ছেলে-মেয়েরা পড়াশুনা করছে স্কুল- কলেজে। মাস শেষ হতেই শিক্ষকদের বেতন আর এনজিওদের কিস্তি দিতে হয়। টাকা না দিলে ঘরে এসে বসে থাকে। তবে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,আইন সবার জন্য সমান হতে হবে। কেউ ধরবে আবার কেউ ধরবে না,তা হবে না। নদীতে থাকা সকল ধরনের অবৈধ নিষিদ্ধ জাল তুলে দিতে হবে। মাছ ধরতে যেন কেউ নদীতে না নামতে পাড়ে তার জন্য সরকারকে কঠোর হতে হবে। ভোলার তুলাতলী এলাকার আড়ৎদার মোঃ জামাল বলেন,আমাদের ব্যবসা আগামী ২২দিনের জন্য বন্ধ ঘোষনা করে দিয়েছি। এই সময়ে আমরা মাছ ক্রয় ও বিক্রয় সব বন্ধ রাখবো। সকল জেলেদের আড়ৎদাররা মাছ না ধরার জন্য উৎসায়ীত করে বলেছেন,কেউ যদি মাছ ধরে কোন ধরনের বিপদে পড়ে তার দায় তারা নিবে না। একই সাথে মা ইলিশ রক্ষায় সরকারকে সহযোগীতার কথা বলেন এসব আড়ৎদারেরা। ইলিশ প্রজনন নিশ্চিত করতে মৎস্য বিভাগের নেতৃত্বে প্রশাসন,পুলিশ,কোস্টগার্ড যৌথ ভাবে কাজ করার কথা জানিয়ে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস.এম আজহারুল ইসলাম। অভিযান শতভাগ সফল হোয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি আরো বলেন,ইলিশ জাতে বেশি পরিমানে ডিম ছাড়তে পারে তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে আরো বেশি পরিমান ইলিশ রক্ষায় সফল হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT