শিক্ষার্থী যৌন হয়রানির মামলায় হালিমা খাতুন স্কুলের গনিত শিক্ষকের বিরুদ্ধে চার্জশীট জমা | | ajkerparibartan.com শিক্ষার্থী যৌন হয়রানির মামলায় হালিমা খাতুন স্কুলের গনিত শিক্ষকের বিরুদ্ধে চার্জশীট জমা – ajkerparibartan.com
শিক্ষার্থী যৌন হয়রানির মামলায় হালিমা খাতুন স্কুলের গনিত শিক্ষকের বিরুদ্ধে চার্জশীট জমা

3:02 pm , September 17, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর হালিমা খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ও নিজ কোচিং ক্লাশে যৌন হয়রানী করার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় বিদ্যালয়ের গণিত শিক্ষক এনামুল হক নিজামী ওরফে নাছিমকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট জমা দিয়েছে পুলিশ। সম্প্রতি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই সাইদুল হক ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে এজাহারনামীয় আসামী এনামুল হক নিজামী ওরফে নাছিমকে অভিযুক্ত করে এ চার্জশীট জমা দেন। এনামুল হক নিজামী মেহেন্দীগঞ্জ পৌর এলাকার চর হোগলার মৃত নিজামুল হক সিকদারের ছেলে। সে বর্তমানে দক্ষিণ আলেকান্দা নিউ হাউজ রোডের ভাড়াটিয়া। এজাহার সূত্রে জানা যায়, নগরীর হালিমা খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গনিত শিক্ষক এনামুল হক নিজামী ওরফে নাছিম দ্বীন বন্ধু সেন লেনে জরিনা নীড় ভবনের নীচ তলায় তার কোচিং সেন্টার পরিচালনা করে। বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেণীর শিক্ষার্থী ও মামলার এজাহারকারীসহ অনেক ছাত্রী ওই কোচিং সেন্টারে পড়াশুনা করে। চলতি বছর ২৭ জুলাই থেকে ১৬ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন সময় শিক্ষক এনামুল হক ওই কোচিং সেন্টারে পড়তে আসা ছাত্রীদের সাথে অশ্লীল ভাষায় কথা বলে এবং গায়ে হাত দিয়ে অবৈধভাবে তার যৌন কামনা চরিতার্থ করে। এরআগে গত বছর ১৫ নভেম্বর সকাল সাড়ে ১১টায় শিক্ষক এনামুল হক এজাহাকারীর বান্ধবীকে পরীক্ষার লুজ শীট দেয়ার উছিলায় তার শরীরের বিশেষ স্থানে স্পর্শ করে শ্লীলতাহানী ঘটায়। এর আগের দিন ১৪ নভেম্বর সকাল সাড়ে ১০টায় এনামুল হক পিছন থেকে বিদ্যালয়ের বারান্দায় দাড়িয়ে থাকা অপর ছাত্রীর শরীরে সু-কৌশলে হাত দেয়। চলতি বছর ১৬ মার্চ এনামুল হক ঝালকাঠির ইকো পার্কে বসে এজাহারকারীর আরেক বান্ধবীর গায়ে হাত দেয়। কোচিং ক্লাশে বসে মশার কয়েল বেঞ্চের নিচে দেয়ার সময় শিক্ষার্থীদের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়। এছাড়া ওই শিক্ষক বিভিন্ন দিন ও সময়ে নিজের অবৈধ যৌন কামনা চরিতার্থ করতে অসংখ্য মেয়ের শরীরে ও স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিয়ে তাদের অপমান করে। মান সন্মান হারানোর ভয়ে ছাত্রীরা মুখ খোলার সাহস পায়নি। গত বছর ২৭ জুলাই শিক্ষক এনামুল হক নিজামী ওরফে নাছিম তার ছাত্রী মামলার এজাহারকারীর দিকে লোলুপ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকায় সে অপমান বোধ করে। এছাড়া শিক্ষক এনামুল হকের অশ্লীল অত্যাচার দিন দিন বেড়ে যাওয়ায় এজাহারকারীসহ অন্যান্য শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক, সহকারি প্রধান শিক্ষক ও শ্রেণী শিক্ষককে বিভিন্ন সময় অবহিত করে। কিন্তু তাতে কোন ফল না পেয়ে ১০ শ্রেণীর ওই শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের দারস্থ হয় এবং চলতি বছর ১৪ মে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করে। দায়ের করা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সাইদুল হক ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা ও তদন্তে প্রাপ্ত সাক্ষ্য প্রমানে এজাহারের প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে গত ৩১ জুলাই মামলার চার্জশীট জমা দেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT