সাগরে ভাসছে ডুবে যাওয়া গলফ আরগো'র প্রসাধনী ও তরল পদার্থ ভর্তি ব্যারেল | | ajkerparibartan.com সাগরে ভাসছে ডুবে যাওয়া গলফ আরগো’র প্রসাধনী ও তরল পদার্থ ভর্তি ব্যারেল – ajkerparibartan.com
সাগরে ভাসছে ডুবে যাওয়া গলফ আরগো’র প্রসাধনী ও তরল পদার্থ ভর্তি ব্যারেল

3:38 pm , September 16, 2019

মিজানুর রহমান বুলেট, কুয়াকাটা ॥ পটুয়াখালীর পায়রা বন্দরের ফেরারওয়ে বয়া সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে এমভি গলফ আরগো জাহাজটি উদ্ধার অভিযান এখনও শুরু হয়নি। জাহাজটি ১২ সেপ্টেম্বর ১৪ নাবিকসহ ১৫২টি কন্টেইনার নিয়ে ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়। পরদিন (১৩ সেপ্টেম্বর) বঙ্গোপসাগরে টহলরহ নৌবাহিনীর জাহাজ সাংগু ডুবে যাওয়া জাহাজের ১৪ নাবিককে উদ্ধার করে হস্তান্তর করা হয়েছে। জাহাজ ডুবির পাঁচ দিনে অতিবাহিত হলেও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন জাহাজ কোম্পানীর লজিষ্টিক ম্যানেজার মো. নুরুজ্জামান। তিনি আরোও বলেন, জাহাজ ও জাহাজের যন্ত্রাংশ এবং বহনকৃত মালামাল রক্ষা ও নিরাপত্তার জন্য মহিপুর থানায় তিনি একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। ওই কপি দিয়েছেন পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষকেও। এদিকে জাহাজের কন্টেইনারসহ বহনকৃত মালামাল সমুদ্রে ভাসছে বলে জানিয়েছেন জেলেরা। ভেসে আসা তরল পদার্থ ভর্তি ব্যারেল ও প্রসাধণী সামগ্রী কুয়াকাটা সৈকতের গঙ্গামতি এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে মহিপুর থানা পুলিশ। তবে অনেক প্রসাধনী সামগ্রী বিনষ্ট হয়ে গেছে। মহিপুর থানার ওসি সোহেল আহমেদ বলেন, গঙ্গামতি সাগর সৈকতে ভেসে আসা একটি কন্টেইনার থেকে তরল পদার্থ ভর্তি ৬০টি ড্রাম ও কিছু প্রসাধনী সামগ্রী উদ্ধার করেছেন। এদিকে কলাপাড়া থানার এস আই বিপ্লব জানিয়েছেন, রোববার রাতে লালুয়া থেকে ১৪ বস্তা বিভিন্ন ব্রান্ডের কসমেটিকস উদ্ধার করেছেন। সাগরে মাছ ধরারত জেলেরা ভাসমান অবস্থায় এসব পণ্য উদ্ধার করে তাদের কাছে হস্তান্তর করে। তবে এসব মালামাল ডুবে যাওয়া জাহাজের কিনা তা যাচাই করা হচ্ছে। পায়রা বন্দর চেয়ারম্যান কমোডর এম জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের জানান, পায়রা বন্দর থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার দক্ষিণে ফেয়ারওয়ে বয়ার কাছে পায়রা চ্যানেলে গলফ আরগো জাহাজ ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ ডুবে যাওয়া জাহাজ উদ্ধারের জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষের সক্ষমতা নেই। জাহাজটি উদ্ধার করতে পারে ডায়রেক্টর জেনারেল অব শিপিং কর্পোরেশন। তবে নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে তারা পায়রা চ্যানেল সমীক্ষার উদ্যোগ নিয়েছেন। চট্রগ্রাম নৌ-বাহিনী এ সমীক্ষার কাজ শুরু করবে। জাহাজ ডুবির কারনে এ চ্যানেলে অন্য জাহাজ চলাচলে কোন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয় কিনা তা যাছাইয়ের জন্য এ সমীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গলফ ওরিয়েন্ট সীওয়েচ লিমিটেডের লজিষ্টিক ম্যানেজার মো. নুরুজ্জামান বলেন, তাঁরা এখনও জাহাজটি উদ্ধারের জন্য আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেন নি।উল্লেখ্য,গত ১২ সেপ্টেম্বর রাতে পায়রা ফেয়ারওয়ে বয়া সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে এমভি গলফ আরগো জাহাজ ১৪ নাবিক নিয়ে ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়। পরদিন (১৩ সেপ্টেম্বর) বঙ্গোপসাগরে টহলরহ নৌবাহিনীর জাহাজ সাংগু ডুবে যাওয়া জাহাজের ১৪ নাবিককে উদ্ধার করে। ১৪ সেপ্টেম্বর বিকালে উদ্ধারকরা নাবিকদের কোম্পানীর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT