দক্ষিণাঞ্চলে কিশোর গ্যাংসহ বখাটে ও উঠতি মাস্তানদের তৎপরতায় সুস্থ সমাজ বিপন্ন | | ajkerparibartan.com দক্ষিণাঞ্চলে কিশোর গ্যাংসহ বখাটে ও উঠতি মাস্তানদের তৎপরতায় সুস্থ সমাজ বিপন্ন – ajkerparibartan.com
দক্ষিণাঞ্চলে কিশোর গ্যাংসহ বখাটে ও উঠতি মাস্তানদের তৎপরতায় সুস্থ সমাজ বিপন্ন

3:11 pm , September 8, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ মহানগরী সহ সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল জুড়ে কিশোর গ্যাং-এর তৎপরতা ক্রমশ সুস্থ সমাজ ব্যবস্থার জন্য হুমকি হয়ে উঠছে। এসব উঠতি মাস্তান ও ছিচকে মাস্তানদের অপ তৎপরতায় বরিশাল মহানগরী সহ দক্ষিণাঞ্চলের প্রতিটি জেলা-উপজেলা সদর সহ এক সময়ের নিভৃত পল্লী এলাকার মানুষও তটস্থ। এসব কিশোর গ্যাং-এর বেশীরভাগের পেছনেই তেমন কোন রাজনৈতিক আশীর্বাদ ও পরিচয় না থাকলেও ক্রমশ তারা ধরা ছোয়ার বাইরে চলে যাচ্ছে। অথচ গোটা সমাজ এসব বখাটেদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছে। আইন শৃংখলা বাহিনীর দীর্ঘ দিনের উদাসীনতা সহ যথোচিতভাবে নজর না দেয়ার কারনেই এসব কিশোর গ্যাং নিজেদের ক্ষমতা জাহির করে চলেছে বলেও অভিযোগ উঠছে। তবে সমাজের বিজ্ঞজনদের মতে আইনÑশৃংখলা বাহিনী তৎপর হলে শুরুতেই সমাজের জন্য হুমকি সৃষ্টিকারী এসব কিশোর গ্যাং-এর তৎপরতা দ্রুত নির্মূল করার সময় এখনো আছে। বরিশাল মহানগরী সহ সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলে এখন অনেক রাত অবধি স্কুল কলেজের ছাত্রÑছাত্রীরা রেষ্টুরেন্টে, রাস্তায় ও পার্কে আড্ডা দিয়ে বেড়াচ্ছে। বরগুনায় প্রকাশ্য দিবালোকে শত শত মানুষের সামনে কলেজ ছাত্র রিফাত হত্যা এবং পরবর্তিতে মূল আসামী নিহত হবার পরে এসব কিশোর গ্যাং-এর তৎপরতায় কিছুটা ভাটা লাগলেও সম্প্রতি তা আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। এমনকি রিফাত হত্যা মামলায় প্রধান সাক্ষী স্ত্রী আয়শা মিন্নিকে আসামী করায় উল্লশিত ঐ শহরের আরো একাধীক কিশোর গ্যাং। রিফাত হত্যার সাথে জড়িত নয়ন বন্ডের কিশোর গ্যাংটির গড ফাদার ছিলেন ঐ শহরের প্রভাবশালী ক্ষমতাশীন দলের নেতার পুত্র আরেক আওয়ামী লীগ নেতা।
খোদ বরিশাল মহানগরীতে একাধীক কিশোরর গ্যাং সক্রিয়। এসব কিশোর-এর তৎপরতায় নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যান, স্বাধীনতা পার্ক, মূক্তিযোদ্ধা পার্ক এবং নবগ্রাম রোড-চৌমাথার লেক-এর পাড়ে এখন আর সমাজের নিরীহÑশান্তিপ্রিয় মানুষের হাটাচলা সহ একটু নিরিবিল সময় কাটানোর কোন সুযোগ নেই। এসব স্থানে মেয়েরা অনেকটাই নিরাপত্তাহীন বলেও অভিযোগ রয়েছে। কিশোর গ্যাং-এর অধিকাংশই বিদ্যালয়ে পড়ুয়া শিক্ষার্থী হলেও বেশীরভাগই পড়াশুনা ছেড়ে দিয়েছে । ২০১৭ সালের ৫ এপ্রিল সন্ধ্যায় একদল কিশোর বরিশাল নগরীর জেলা স্কুল মোড় থেকে ব্রাউন কম্পাউন্ড সড়কে ধারালো অস্ত্র নিয়ে প্রকাশ্যে বেপরোয়াভাবে যানবহন ভাংচুর করে। একদল কিশোর ওইদিন প্রতিপক্ষের একাধিক ব্যক্তিকে মারধর ও কুপিয়ে জখম করে। এ দলটি ২৪ অক্টোবর চাঁদা না পেয়ে নগরীর হেমায়েত উদ্দিন রোডের একটি সেল ফোনের দোকানে হামলা চালায়। এ দুটি ঘটনার পেছনেই ছিল তানজিম আহম্মেদ ও সৌরভ বালা গ্রুপ। তানজিম ও সৌরভ বালা গ্রুপ বাংলাদেশ ব্যাংক মোড়, ব্রাউন কম্পাউন্ড ও সদর রোডের একাংশে চাঁদাবাজীসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালায় বলে সুস্পষ্ট অভিযোগ রয়েছে। এ গ্রুপের সদস্যদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালী থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। যানবাহন ভাংচুড় ও সেল ফোনের দোকান হামলার ঘটনায় সৌরভ বালা সহ একাধীক বখাটে গ্রেফতার হলেও জামিনে ছাড়া পেয়ে আবার সমাজবিরোধী কর্মকান্ডে সক্রিয় রয়েছে।
বরিশাল নগরীতে ৭/৮টি কিশোর বখাটে গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে বলে জানা গেছে। বিভিন্ন সুত্র জানায়, বিএম কলেজ থেকে সংলগ্ন নতুন বাজার, বৈদ্যপাড়া এলাকায় আজমল হোসেন রুমন-এর নেতৃত্বে একটি কিশোর সন্ত্রাসীদের গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে। রাহুল গ্রুপ নগরীর বটতলা এলাকায় সক্রিয়। এছাড়া নগরের আমির কুটির, চৌমাথা, রূপাতলী, সাগরদী, পলাশপুর, কাউনিয়া এবং আমানতগঞ্জ এলাকায় আরও ৪/৫টি বখাটে কিশোর সন্ত্রাসী গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে বলে বিভিন্ন সুত্র নিশ্চিত করেছে।
বরিশাল বিএম কলেজ ক্যম্পাস ও সন্নিহিত এলাকায় একাধীক কিশোর গ্রুপ সক্রিয়। এমনকি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন হোস্টেল ও আশেপাশের বৈদ্যপাড়া, মধুমিয়ার পোল সহ সংলগ্ন এলাকার একাধিক কিশোর গ্যাং-এর নানামুখী তৎপরতার অভিযোগ রয়েছে। প্রায়ই হোস্টেলের নিরীহ ছাত্রদের কাছ থেকে টাকা আর সেলফোন ছিনতাই সহ তাদের ওপর হামলারও অভিযোগ রয়েছে। একই অভিযোগ রয়েছে বটতলা বাজার থেকে শুরু করে সংলগ্ন শহিদ আলমগীর ছাত্রাবাসেও। নবগ্রাম রোড চৌমাথা সংলগ্ন লেকটির পাড়, বঙ্গবন্ধু উদানের হেলিপ্যাড সহ নগরীর প্রায় সবগুলো পার্কেই সন্ধ্যার পর থেকে অনেক রাত অবধি ইয়াবার হাট বসে।
তবে ঝালকাঠীর এসপি অতি সম্প্রতি শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে একাধিক স্কুলÑকলেজগামী ছাত্রÑছাত্রীকে সন্ধ্যার পরে আটক করে থানায় নিয়ে অভিভাবকদের জিম্মায় দিয়েছেন। এ বিষয়টি পরিস্থিতি উন্নয়নে ইতিবাচক ভুমিকা রেখেছে বলে জানিয়েচেন অভিভাবক মহল।
এসব বিষয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অসীম কুমার নন্দী সাংবাদিকদের জানান, পরিবার থেকে উপযুক্ত শিক্ষা না পাওয়ায় সমাজে মাদকের প্রভাব বাড়ছে। পাশাপাশি রাজনৈতিক কারনেও সৃষ্টি হচ্ছে কিশোর সন্ত্রাসী ও বখাটে গ্রুপ। এসব গ্রুপের সদস্যরা অনেকেই প্রাপ্ত বয়স্ক নয়। সহজলভ্য হওয়ায় তারা জড়িয়ে পড়ছে মাদক ব্যবসা এবং সেবনের সঙ্গে। যে কারনে সামান্য ঘটনায়ও এরা বড় ধরনের অপরাধ সংঘটিত করছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরনে সমাজ থেকে মাদকের প্রভাব নির্মুল করার তাগিদ দেন তিনি। পারিবারিক বন্ধন সুদৃঢ় করা সহ সামাজিক মুল্যবোধকে সক্রিয় করারও তাগিদ দেন এ শিক্ষাবীদ। তিনি রাজনীতিক নেতৃবৃন্দকেও এ ব্যাপারে অধিকতর সতর্ক হয়ে কোন অপরাধীকে আশ্রয়-প্রশ্রয় না দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করার তাগিদ দেন।
মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মোহাম্মদ শাহাবউদ্দিন খান এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, কিশোর অপরাধ ও বখাটেপনা কমাতে মহানগর পুলিশের উদ্যোগে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সচেতনতামুলক সভা করা হচ্ছে। অভিভাবক ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গেও মতবিনিময় করে সকলকে সচেতন করা হচ্ছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, কিশোররা কোন অপরাধ কর্মকান্ডে যুক্ত না হয় সে লক্ষ্যে প্রচষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তিনি এ ব্যাপারে অভিভাবক সহ সমাজের সকলকে সক্রিয় ভুমিকা পালনেরও তাগিদ দেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT