বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত ব্যক্তির লাশ নিয়ে উত্তেজনা | | ajkerparibartan.com বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত ব্যক্তির লাশ নিয়ে উত্তেজনা – ajkerparibartan.com
বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত ব্যক্তির লাশ নিয়ে উত্তেজনা

3:21 pm , June 22, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর রুপাতলীতে বিদুৎস্পৃষ্ঠ হয়ে মনির তালুকদার (৩৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার দিবাগত রাতে তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ নাজমুল সাকিব। মৃত মনিরতালুকদার নগরীর ২৪ নম্বর ওয়ার্ডস্থ রুপাতলী এলাকার বাসিন্দা আঃ ছত্তার তালুকদারের ছেলে। মৃতের স্বজনরা জানান, রুপাতলী সোনারগাঁ টেক্সটাইল সংলগ্ন এলাকার নিজ বাসায় বিদ্যুতের কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন মনির। দ্রুত তাকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। হাসপাতালের জরুরী বিভাগের দায়িত্বরতরা জানান, মৃত ঘোষনার পর মনিরের মরদেহ নিয়মানুযায়ী হাসপাতালের লাশ রাখা কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়। কিছুক্ষন পরে কতিপয় ব্যক্তি মৃত মনিরকে নরে উঠতে দেখেছেন বলে দাবী করলে সৃষ্টি হয় হট্টগোলের। মৃত মনিরের মরদেহ পুনরায় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হলেও তাকে মৃতই ঘোষনা করা হয়। পরে স্বজনরা তার মরদেহ সুরতহাল ও ময়না তদন্ত ছাড়াই হাসপাতাল থেকে নিয়ে যেতে উদ্যত হন। এসময় হাসপাতাল স্টাফদের সাথে স্বজনদের বাক-বিতন্ডাও হয়। পরে সেখানে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে থানা পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা কর। এসময় স্বজনদের আইনি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে মনিরের মরদেহ নিয়ে যাওয়ার কথা বললেও পুলিশের উপস্থিতিতেই তা শেবাচিম হাসপাতাল থেকে নিয়ে যাওয়া হয়। এই বিষয়ে ঘটনাস্থলে থাকা কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই তানজিল সাংবাদিকদের জানান, মরদেহের ময়না তদন্ত করতে চাননা স্বজনরা। তাই তারা মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গেছেন। পরে সুরতহাল করে আইন অনুযায়ী মরদেহ বুঝে নিয়েছেন তারা।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT