বাকেরগঞ্জে স্কুল ছাত্র হত্যা মামলা প্রত্যাহারে তদন্ত কর্মকর্তার ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ | | ajkerparibartan.com বাকেরগঞ্জে স্কুল ছাত্র হত্যা মামলা প্রত্যাহারে তদন্ত কর্মকর্তার ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ – ajkerparibartan.com
বাকেরগঞ্জে স্কুল ছাত্র হত্যা মামলা প্রত্যাহারে তদন্ত কর্মকর্তার ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ

3:12 pm , June 16, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বাকেরগঞ্জে নবম শ্রেনীর ছাত্রকে হত্যা করে লাশ গাছের সাথে ঝুলিয়ে রাখার ঘটনায় আদালতে করা মামলা প্রত্যাহার করার জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে বলে দাবী করছে বাদী বাবা। এমন অভিযোগ এনে রোববার বরিশাল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। মামলার বাদী মো. বাবুল খান জানান, তার সন্তান উপজেলার শিয়ালগুনি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী শাকিল খান। গত ২৭ মার্চ রাত ১০টার দিকে শাকিলকে ঘর থেকে ডেকে নেয় সহপার্ঠি প্রেমিকা তামান্না। দীর্ঘ সময় সে ঘরে ফিরে না আসায় তার খোঁজে বের হয় তারা। রাত সাড়ে ১১টার দিকে তামান্নার মামা দেলোয়ার ডাক চিৎকার শুরু করে। তখন সেখানে গিয়ে দেখতে পান সন্তান শাকিল গলায় রশি পেছানো অবস্থায় গাছের সাথে ঝুলানো রয়েছে। তার পা মাটিতে রয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।
শাকিলের বাবা অভিযোগ করে বলেন, সন্তানকে পরিকপ্লিতভাবে হত্যার অভিযোগ এনে থানায় মামলা করতে যায় সে। কিন্তু পুলিশ ময়না তদন্ত প্রতিবেদন না এলে মামলা গ্রহন করবে না বলে জানিয়ে দেয়।
তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, শাকিলের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদনে তার সাথে পাওয়া চারটি মোবাইল সিমের কথা উল্লেখ করেনি। মামলা না নেয়া ও সুরতহাল প্রতিবেদনে সীম পাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ না করায় সন্দেহের সৃষ্টি হয়। তাই গত ৩১ মার্চ বাবুল খান বাদী হয়ে বরিশাল সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৃতীয় আমলী আদালতে তামান্না,তার পিতা ফিরোজ হাওলাদার সহ ১০ অভিযুক্ত করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।
বাবুল খান অভিযোগ করেন, আদালতে মামলা দায়েরের পর পুলিশ তাকে ডেকে নিয়ে মামলা প্রত্যাহার করতে বলে। তা না হলে বিপদ হবে বলে ভয়ভীতি দেখায় পুলিশ বলে অভিযোগ করেন বাদী।
তিনি জানান, এতে আমাদের ধারণা হয় পুলিশ মামলার সুষ্টু তদন্তের চেয়ে মামলার কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্থ করছে। তাই সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে সন্তানকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার ন্যায় বিচার পেতে দাবী করেন বাবা।
এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী অফিসার ওসি (তদন্ত) জুবায়ের বলেন, লাশ উদ্ধারের পর থানায় অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। তার গায়ে কোন ধরনের আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তাই ময়না তদন্ত প্রতিবেদন এলে পরবর্তি ব্যবস্থা নেয়া হবে। ময়না তদন্তে হত্যার আলামত পাওয়া গেলে তারা ন্যায় বিচার পাবে।
উল্লেখ্য শাকিল ও তামান্নার মধ্যে প্রেম নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ রয়েছে। এর জের ধরে হিসাবে শাকিল হত্যার দিনই তামান্নার বাবা ফিরোজ সহ তার আত্মীয়-স্বজনরা বাবুলকে হুমকি দিয়েছে, শাকিলকে হত্যা করার মাধ্যমে শেষ করে দেব প্রেমের কাহিনী। ওই রাতেই বাকেরগঞ্জের কবাই ইউনিয়নের খোদাবক্সকাঠি গ্রাম থেকে শাকিলের গলায় তামান্নার ওড়না দিয়ে গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
চরফ্যাসনে দু’গ্রুপের সংঘষে
ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে চরফ্যাসন থানা পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে চরফ্যাসন হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক গুরুতর আহত ৫জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই- বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেছেন । এ সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানাগেছে। আহতরা হলেন, কাজল বাতান (৬০), সুজন বাতান (৩০), কাশেম বাতান (৫৫), সোহেল (২৮) ও ফারুক (৩০)।
স্থানীয়রা জানান, জমির মালিকানা বিরোধকে কেন্দ্র করে কাশেম বাতান ও কাজল বাতান দুই ভাইয়ের পরিবার বিরোধীয় জমিতে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে এবং আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। চরফ্যাসন থানার ওসি সামসুল আরেফিন জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেছে। দুই পক্ষের কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি । অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এসংবাদ লেখা পর্যন্ত কোন পক্ষ মামলা দায়ের করেনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT