রুপাতলী বাসষ্ট্যান্ডে দুই দফা ধর্মঘট | | ajkerparibartan.com রুপাতলী বাসষ্ট্যান্ডে দুই দফা ধর্মঘট – ajkerparibartan.com
রুপাতলী বাসষ্ট্যান্ডে দুই দফা ধর্মঘট

6:37 pm , June 9, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বাস ও মাহেন্দ্র শ্রমিকদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই দফা বাস ধর্মঘট পালন করেছে রূপাতলী বাস-মিনিবাস মালিক ও শ্রমিকরা। গতকাল দুপুর আড়াইটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত দুই দফায় বাস ধর্মঘটের ফলে প্রায় দেড় ঘন্টা বরিশাল থেকে দক্ষিণাঞ্চল রুটে বাস চলাচল বন্ধ ছিলো। ইফতারের পূর্ব মুহুর্তে বাস মালিক ও শ্রমিকদের ধর্মঘটের ফলে ভোগান্তিতে পড়তে হয় শত শত যাত্রীদের। পরে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকতাদের সাথে মালিক ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ’র বৈঠক শেষে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত বরিশাল জেলা বাস, মিনিবাস, কোচ, মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ জানান, গতকাল শনিবার দুপুরে রূপাতলী থেকে যুথি পরিবহন’র বাস যাত্রী নিয়ে বাকেরগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এসময় রূপাতলী গোল চত্ত্বরে একটি মাহেন্দ্র’র সাথে ধাক্কা লাগে। এ নিয়ে মাহেন্দ্র চালক মিজান এর সাথে বাস চালক আনোয়ারের কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে মাহেন্দ্রা চালক মিজান ভোলা সড়ক সংলগ্ন জিরো পয়েন্টের কাছে ওই বাসটি আটকে চালক আনোয়ারকে ঝাড়– পেটা করে। এ খবর অন্যান্য শ্রমিকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে তারা দক্ষিণাঞ্চলের সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়। এমনকি বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের খয়রাবাদ সেতু থেকে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত রাস্তার উপর বাস থামিয়ে রেখে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জিরো পয়েন্ট এলাকায় বাস মালিক সমিতির চেক পোষ্ট রয়েছে। সেখানে থাকা মালিক ও শ্রমিকরা মাহেন্দ্র চালক মিজানের ভাই বেল্লালকে মারধর করে। এ নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে বন্দর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পাশাপাশি থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এদিকে বরিশাল-পটুয়াখালী বাস, মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি আজিজুর রহমান শাহীন জানান, দুপুরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ডিসি ট্রাফিক উত্তম কুমার পাল ঘটনাস্থলে যান। সেখানে গিয়ে জিরো পয়েন্টে থাকা রূপাতলী মালিক সমিতির চেক পোষ্ট এর বৈধতা সম্পর্কে জানতে যান। এমনকি তিনি ওই চেক পোষ্ট তুলে নেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়ে চলে আসেন। ডিসি ট্রাফিক এর দেয়া নির্দেশকে কেন্দ্র করে পুনরায় বিক্ষুব্ধ হন বাস মালিক ও শ্রমিকরা। যে কারনে বিকাল সোয়া ৫টার দিকে পুনরায় খয়রাবাদ সেতু থেকে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। এর পাশাপাশি শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু থেকে প্রায় তিন কিলোমিটারের মধ্যে সড়কের উপর বাস রেখে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। ইফতারের পূর্বে বাস মালিক ও শ্রমিকদের ধর্মঘটের কারনে বিপাকে পড়তে হয় যাত্রীদের। তাই ইফতার পরে বিষয়টি মেট্রোপলিটন ডিসি ট্রাফিক কার্যালয়ে এক বৈঠক হয়। যেখানে ডিসি ট্রাফিক উত্তম কুমার পাল সহ বাস মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জিরো পয়েন্টে বাস মালিক সমিতির চেক পোষ্টে ট্রাফিক পুলিশ থাকার সিদ্ধান্ত হয়। তবে এই চেক পোষ্ট থেকে মাহেন্দ্রা চলাচলে বাঁধা কিংবা চাঁদা আদায় না করার জন্য বলা হয়েছে। এছাড়াও বাস মালিক ও শ্রমিকদের বেশ কয়েকটি দাবী মেনে নিলে প্রায় এক ঘন্টা পরে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়া হয় বলে জানিয়েছেন আজিজুর রহমান শাহীন। পাশাপাশি শ্রমিককে ঝাড়–পেটা করা মাহেন্দ্র শ্রমিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের সিদ্ধান্তও হয়েছে ওই বৈঠকে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT