দুর্নীতির মামলায় তিন ঠিকাদার খালাস দন্ডিত ব্যাংকের সাবেক দুই কর্মকর্তা | | ajkerparibartan.com দুর্নীতির মামলায় তিন ঠিকাদার খালাস দন্ডিত ব্যাংকের সাবেক দুই কর্মকর্তা – ajkerparibartan.com
দুর্নীতির মামলায় তিন ঠিকাদার খালাস দন্ডিত ব্যাংকের সাবেক দুই কর্মকর্তা

3:19 pm , May 30, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ দুর্নীতির মাধ্যমে ব্যাংক ঋন উত্তোলন ও আত্মসাতের পৃথক দুই মামলায় খালাস পেয়েছেন কীর্তনখোলা লঞ্চের মালিকসহ সাবেক কাউন্সিলর ও ঠিকাদার। তবে ১৪ বছর করে কারাদন্ড ভোগ ও ২ কোটি টাকা জরিমানা দিতে হবে ঋনদাতা ঢাকা ব্যাংকের সাবেক দুই কর্মকর্তাকে। গতকাল বৃহস্পতিবার বরিশাল বিভাগীয় বিশেষ ট্রাইবুনালের বিচারক মো. মহসিনুল হক এ রায় দেন। খালাস প্রাপ্তরা হলো- ঢাকা-বরিশাল রুটের কীর্তণখোলা লঞ্চের মালিক মনজুরুল আহসান ফেরদৌস, নগরীর ১৫ নং ওয়ার্ড থেকে টানা ৪ বার নির্বাচিত সাবেক কাউন্সিলর জাকির হোসেন জেলাল এবং ঠিকাদার আলতাফ হোসেন তালুকদার। এরা তিনজনই নগরীতে প্রতিষ্ঠিত ঠিকাদার। দন্ডিতরা হলো- ঢাকা ব্যাংকের বরিশাল শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক কেএইচএন আসাদুজ্জামান ও সাবেক সিনিয়র কর্মকর্তা মো. হুমায়ন কবীর। আদালত সুত্রে জানা গেছে, ভুয়া ওয়ার্ক অর্ডার, জাল গ্যারান্টি পত্র, জাল এ্যাসেসমেন্ট ব্যবহার করে ঢাকা ব্যাংকের বরিশাল শাখা থেকে ঋন উত্তোলন করা হয়। দন্ডিত দুই ব্যাংক কর্মকর্তা ২০১০ সালের ১৬ মে থেকে ২০১৩ সালের ৮ জুলাই ঢাকা ব্যাংকের বরিশাল শাখায় দায়িত্বপালনকালে এ জালিয়াতির ঘটনা ঘটে। পরে আত্মসাতের বিষয়টি ধরা পড়লে ব্যাংকের তৎকালীন ভাইস প্রেসিডেন্ট আ. মালেক হাওলাদার বাদী হয়ে মহানগরীর কোতয়ালী মডেল থানায় ২০১৩ সালের ৬ আগষ্ট পৃথক দুইটি মামলা করেন। মামলার দুইটির একটিতে ৫২ লাখ ও অপরটিতে ২ কোটি ২৪ লাখ ৫০ হাজার ৭৮০ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনেন। বরিশাল দূর্ণীতি দমন কমিশনের উপ পরিচালক এবিএম আব্দুস সবুর মামলাটি তদন্ত করেন। দুই মামলায়ই ঢাকা ব্যাংকের কর্মকর্তাসহ তিন ঠিকদার যোগাসাজস করে ব্যাংকের অর্থ আত্মসাত করেছে বলে দুইটি ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলার পৃথক দুইটি চার্জসীট দেন দূদক কর্মকর্তা। এর প্রেক্ষিতে বিচারক ৩৪ জনের স্বাক্ষ্য নিয়ে রায় দেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT