বিদ্যুৎ খুঁটি রেখে নির্মান করা স্থাপনা ভেঙে ফেলতে নোটিশ | | ajkerparibartan.com বিদ্যুৎ খুঁটি রেখে নির্মান করা স্থাপনা ভেঙে ফেলতে নোটিশ – ajkerparibartan.com
বিদ্যুৎ খুঁটি রেখে নির্মান করা স্থাপনা ভেঙে ফেলতে নোটিশ

3:19 pm , May 30, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ দৈনিক আজকের পরিবর্তনে সংবাদ প্রকাশের পরে নগরীর পলাশপুরে ৩৩ কেভি বৈদ্যুতিক ক্যাবল ও খুটির কাছ থেকে ভবন ভেঙে ফেলার জন্য তিনটি পরিবারকে নোটিশ দিয়েছে ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্টিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো)। এছাড়া বিল্ডিং কোড অমান্য এবং কোন প্রকার প্লান অনুমোদন ছাড়াই ভবন নির্মান করায় তা ভেঙে ফেলতে সিটি কর্পোরেশনের সহযোগিতাও চেয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। গত ২৩ মে উল্লেখ করে দেয়া স্থাপনা উচ্ছেদের ওই নোটিশ গতকাল বৃহস্পতিবার (৩০ মে) হাতে পেয়েছেন পলাশপুরের গুচ্ছগ্রাম ১ ও ৬ নম্বর ব্যারাকের ৩টি ভবন মালিক। নোটিশ প্রাপ্তরা হলেন- ওই এলাকার আব্দুর রশিদ মোল্লার ছেলে মো. হাসান মোল্লা, কালু বেপারীর ছেলে মো. আয়নাল বেপারী এবং মৃত কাশেম আলী’র ফকিরের ছেলে মো. শাহজাহান ফকির। ওজোপাডিকো’র বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী অমূল্য কুমার সরদার স্বাক্ষতির নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে, ৩৩ কেভি বৈদ্যুতিক ক্যাবলের নীচে আপনারা আপনাদের স্থাপনায় নতুন ভবন নির্মাণ করেছেন। যেহেতু বিদ্যুৎ লাইন আপনাদের ঘর নির্মাণের ২৭ বছর পূর্বে নির্মিত হয়েছে, সেহেতু আপনাদের বিদ্যুৎ লাইন আইন অনুযায়ী বৈদ্যুতিক লাইনের নীচ থেকে ঘর-বাড়ী/স্থাপনা নির্মাণ করার বিধান নাই। ৩৩ কেভি বৈদ্যুতিক লাইন অতি বিপদজনক। যে কোন সময় বৈদ্যুতিক ত্রুটির কারনে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।
তাই বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনা এড়াতে নিজ উদ্যোগে ৩৩ কেভি লাইনের নিকট হইতে নিরাপদ দুরত্বে আপনাদের ঘর-বাড়ী/স্থাপনা সরানোর জন্য অনুরোধ করা হলো। অন্যথায় কোন দুর্ঘটনা ঘটলে বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।
এদিকে নোটিশ পাওয়া তিন ব্যক্তি বলেন, বিদ্যুৎ বিভাগের দেয়া চিঠিতেই তারা উল্লেখ করেছেন যে তাদের উপ-কেন্দ্রের ৩৩ কেভি লাইন স্থাপন হয়েছে ২৭ বছর পূর্বে। অথচ আমরা এ জমিতে ৩০ থেকে ৪২ বছর পূর্বে থেকে বসবাস করছি। যদিও কোন প্রকার অনুমতি বা প্লান ছাড়াই বহুতল ভবন নির্মানের কথা স্বীকার করেন তারা।
ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্টিবিউশন কোম্পানি (ও.জো.পা.ডি.কো) এর বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী অমূল্য কুমার সরদার বলেন, বিষয়টি নিয়ে অনলাইন গণমাধ্যম ও পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। সে থেকেই আমরা বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছি।
তিনি বলেন, যারা ভবন নির্মান করেছেন তারা আমাদের কাছ থেকে কোন অনুমতি নেননি। তার পরেও সংশ্লিষ্ট এলাকায় আমাদের যারা দায়িত্বে রয়েছেন দায়িত্ব অবহেলার জন্য আমরা তাদের বিরুদ্ধে ও ব্যবস্থা নিচ্ছি। সেই সাথে অবৈধভাবে নির্মিত ভবনও ভেঙে ফেলতে হবে।
নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, বিল্ডিং কোড অনুযায়ী ভবন নির্মান করতে হলে অবশ্যই বিদ্যুৎ লাইন ও খুটি থেকে কমপক্ষে ৭ ফুড দুরে করতে হবে। কিন্তু যে তিনটি ভবন মালিককে নোটিশ দেয়া হয়েছে তারা বৈদ্যুতিক খুটি ঘরের মধ্যে রেখেই ভবন নির্মান করেছে। তাই ওই তিনটি ঘর ভেঙে ফেলার জন্য তিনজন ব্যক্তিকে ছাড়াও সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষকেও নোটিশ দেয়া হয়েছে। যেহেতু ভবন তিনটির কোন অনুমোদন ও বা বিল্ডিং কোড অনুসরন করা হয়নি তাই ভবন ভেঙে ফেলতে সিটি কর্পোরেশনের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, বরিশাল নগরীর ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পলাশপুর এলাকায় ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্টিবিউশন কোম্পানির ৩৩ কেভি বিদ্যুৎ এর লাইনের নীচে প্রায় ২০টি পরিবার বসবাস করে আসছে। যার মধ্যে তিনটি ঘরের মধ্যে বৈদ্যুতিক খুটি রেখেই দ্বিতল ও তৃতীয় তলা ভবন নির্মান করেছেন তিনজন ব্যক্তি।
এ নিয়ে গত ২৮ মে দৈনিক আজকের পরিবর্তনে একটি সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়। এর পর পরই বিষয়টি বিদ্যুৎ বিভাগ কর্মকর্তাদের নজরে আসছে। পরে ভবন ভেঙে ফেলতে সংশ্লিষ্টদের নোটিশ দেয়া হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT