জমে উঠেছে ঈদের পোষাকের বাজার মূল্য সহনীয় রাখার দাবী ক্রেতাদের | | ajkerparibartan.com জমে উঠেছে ঈদের পোষাকের বাজার মূল্য সহনীয় রাখার দাবী ক্রেতাদের – ajkerparibartan.com
জমে উঠেছে ঈদের পোষাকের বাজার মূল্য সহনীয় রাখার দাবী ক্রেতাদের

3:15 pm , May 25, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশালে জমে উঠেছে ঈদের পোষাকের বাজার । ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে ভীড় বাড়ছে নগরীর বিপনী বিতানগুলোতে। প্রতিদিনই ক্রেতাদের ভীড় এবং বিক্রির পরিমান বৃদ্ধি পাচ্ছে। নগরীর ব্রান্ডশপগুলোতে ভীড় বেশী রয়েছে ত্রেতাদের। তবে এখন পর্যন্ত অনেকেই ইদ বোনাস না পাওয়ায় মার্কেটে উপচে পরা ভীড় আরম্ভ হয়নি। তবে এখন প্রতিদিনই সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত ক্রেতাদের ভীড় থাকবে বলে জানান বিক্রেতারা।এদিকে ক্রেতারা জানান ঈদকে কেন্দ্র করে পোষাকের চড়া মূল্য হাকছে বিক্রেতারা।
গত ঈদের পরে এবার নগরীতে ব্রান্ডশপ বেড়েছে আরে ৪/৫ টি । আর আগে থেকেই  রয়েছে ক্যাটস আই,ইনফিনিটি,রিচম্যান,লুবনান ইজি,প্লাস পয়েন্ট সহ অন্যান্য নামিদামি একাধিক ব্রান্ডশপের শো-রুম। নগরী ঘুরে দেখাগেছে প্রতিবারের  মত এবারেও নগরীর ব্রান্ডশপ গুলোতে ক্রেতাদের উপস্থিতি বেশী।এক শোরুমের মধ্যে পর্যাপ্ত পোশাকের ডিসপ্লে থাকায় ক্রেতারা ঝুকছেন বড় শো-রুম গুলোতে। ক্রেতারা জানান, ব্রান্ডশপগুলোতে একদর হওয়ায় দামাদমি করার প্রয়োজন এবং হারজিত নিয়ে শংশয় তৈরী হয়না এবং একটি শোরুমের মধ্যেই নারী,পুরুষ ও বাচ্চাদের সকল ধরনের পোশাক পাওয়া যাচ্ছে।তবে পোষাকের মূল্য বেশী বলে ক্রেতাদের দাবী।
নহগীর হাজি মুহাম্মদ মহসীন মার্কেটে এক্সপোর্ট কোয়ালিটির পোশাকের সংগ্রহ রয়েছে। এবার ছেলেদের পোশাকের মধ্যে এক রংয়ের ষ্টীজ শার্ট,এক্সপোর্ট কোয়ালিটির জিন্স প্যান্ট এবং আদি কাপড়ের পাঞ্জাবীর চাহিদা বেশী। এদিকে নগরীর দক্ষিণ চকবাজার মোড়ে ব্রান্ডশপ আরশ পাঞ্জাবী ও শাড়িতে ১০% মূল্য ছাড় দিয়েছে। মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই শো রুমটি ক্রেতাদের নজর কেড়েছে।
এদিকে নগরীর চকবাজারে ভীড় শুরু হয়েছে আরো ৩/৪ দিন পূর্বেই। স্বদেশী, শাড়ি মিউজিয়াম, ময়ূরীর মত বড় শোরুম গুলোর পাশাপাশি ছোট শোরুম গুলোতেও ভীড় রয়েছে । এবারে নারীদের পোশাকের মধ্যে ফ্রি পিস, ফ্রক ও গাউনের চাহিদা বেশী। দোকানীরা জানান,এবার ভারতীয় গাউন ৩ হাজার ৫‘শ থেকে ৬ হাজার ’৫শ টাকা,মূসকান  ৩ হাজার থেকে ৬ হাজার , লেহেংঙ্গা ২ হাজার থেকে ৫ হাজার ৫’শ টাকা,ভারতীয় বেনারসী থ্রি পিস ৪ হাজার থেকে ৭ হাজার টাকা বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ছোটদের বেবী টু পিস,ফ্রক ও গাড় রংয়ের পোষাকের চাহিদা বেশী রয়েছে। স্বদেশী শাড়ি হাউজের স্বত্বাধিকারী মৃনাল কান্তি শাহা জানান,প্রতিবারের মত সূতী কাপড়ের শাড়ীর চাহিদা বেশী। বিশেস করে বয়ষ্ক ক্রেতাদের প্রথম পছন্দ সূতীকাপর। এছাড়া কাতান, সিল্ক,টাঙ্গাইল ,বেনারসী সাড়ির চাহিদা বেশী।
ক্রেতারা জানান,প্রচন্ড গরম থাকায় পাতলা ও সুতি কাপরের পোশাক কেনা হচ্ছে বেশী। এছারা কাটা কাপর কিনে পোশাক বানিয়ে নিচ্ছেন অনেকেই। একাধিক ক্রেতা বলেন পোষাক পছন্দ হলেও মূল্য কিছুটা বেশী। এছাড়া আবার কোন কোন দোকানে ১৫% ভ্যাট নেয়া হচ্ছে।  তবে অনেকেই আবার বলেন  একদর হওয়ায় পছন্দের পোষাক পেতে সুবিধা হচ্ছে। এখন নগরীতে সকল ধরনের ব্রান্ড শপের শাখা এবং শো রুম থাকার কারনে ঢাকা যেতে হয়না। এছাড়া একটি শোরুমে গেলেই বাচ্চাদের পোশাক থেকে সকল বয়সীদের পোষাকই পাওয়া যাচ্ছে। নগরীর চন্দ্রবিন্দু  শো-রুমের বিক্রয় প্রতিনিধি ইমরান হোসেন জানান,প্রতিযোগীতা মূলক বাজার হওয়ায় সবাই সেরা কালেকশন সংগ্রহের চেষ্টা করে। সকল শ্রেনী পেশার ক্রেতাদের চাহিদা বিবেচনা করে সর্বনিন্ম ১হাজার টাকা থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত পোশাক রাখা হয়েছে। এবার ছেলেদের পোষাকের মধ্যে সুলতান পাঞ্জাবী এবং মেয়েদের পোষাকের মধ্যে ভারতীয় গাউনের চাহিদা বেশী। এদিকে ঈদকে  সামনে রেখে বরিশালে তেমন ভীড় নেই থান কাপরের দোকানগুলোতে। ইতিপূর্বে কাটা কাপর কিংবা থান কাপরের দোকানগুলোতে রমজানের প্রথম দিকেই ভীর দেখা গেলেও এবার ব্যাতিক্রম। এর প্রভাব পরেছে নগরীর টেইলার্স গুলোতেও । নগরীর ফজলুল হক এভিনিউ এলাকার জেন্টস টেইলার্সের দোকানগুলোতে গিয়ে দেখা যায় অনেকটা অলস সময়ই পার করছেন দর্জি শ্রমিক ও মালিকরা। তারা জানান, গত ৩/৪ বছর ধরে  নগরীতে ব্রান্ড শপ ,তৈরী পোশাকের দোকান এবং শপিংমল বৃদ্ধি পাওয়ায় টেইলার্সের দিকে ক্রেতারা কম ঝুকছে। পূর্বে রমজানের শুরুতেই অর্ডার নেয়া বন্ধ করে দিতে হত কিন্তু এবার কোন চাপ না থাকায় ঈদের একদিন পূর্বেও অর্ডার নেয়া সম্ভব হবে। তবে  শরীরের প্রয়োজন অনুযায়ী  পোশাক তৈরী করতে পছন্দের কাটা কাপড় ও টেইলাসের্র শরনাপন্ন হচ্ছেন কোন কোন ক্রেতা।
নগরীতে সদর রোড ও চকবাজার ছাড়াও  পুলিশ লাইন রোডের ,পুনাক প্যাশন,ক্রাফট জোন ,হাইক, ,বটতলা এলাকার প্লাস পয়েন্ট ,গীর্জা মহল্লা এলাকার পিটার ইংল্যান্ড, নেক্্রট প্লাস,সোবাহান কমপ্লেক্স এর এক্্রজোন সহ অন্যান্য শো-রুমগুলোতে  আকর্ষনীয় পোষাক এনে ক্রেতাদের মধ্যে সারা ফেলেছে। শো-রুম গুলোতে আকর্ষন তৈরীতে  বর্নিল আলোকস্বজ্জা আর আকর্ষনীয় ডিসপ্লে করা হয়েছে ।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT