ভোলার রাজাপুর ইউপি চেয়াম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা | | ajkerparibartan.com ভোলার রাজাপুর ইউপি চেয়াম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা – ajkerparibartan.com
ভোলার রাজাপুর ইউপি চেয়াম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা

2:49 pm , March 23, 2020

পরিবর্তন ডেস্ক ॥ ভোলায় জেলেদের চাল বিতরণে অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগে সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব দিয়েছে ১০ সদস্য (মেম্বর)। গতকাল সোমবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে তারা লিখিত অভিযোগসহ অনাস্থা প্রস্তাব দিয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন।
অনাস্থা প্রস্তাব আনা সদস্যরা হলো- সংরক্ষিত সদস্য রুজিনা, নাছরিন আক্তার, নাজমুন নাহার, সাধারণ সাধারন সদস্য জহিরুল ইসলাম (১নং ওয়ার্ড), আবদুল জলিল (৩নং ওয়ার্ড), মাসুদ রানা (৪নং ওয়ার্ড), ইমাম হোসেন (৫নং ওয়ার্ড), আবদুস সালাম (৬নং ওয়ার্ড), আবু তাহের (৭নং ওয়ার্ড), মো. মিলন (৮নং ওয়ার্ড)। তারা লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন রাজাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান খান আইন কানুনের তোয়াক্কা না করে নিজে স্বেচ্ছাচারিতা ও অনিয়ম চালিয়ে যাচ্ছে। ইউনিয়ন পরিষদের প্রায় ২ লাখ টাকার গাছ বিনা টেন্ডারে বিক্রী করে টাকা আত্মসাত করেছেন। বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা, স্বামী পরিত্যাক্তা,মাতৃত্কালী ভাতা, আশ্রয়কেন্দ্রের ঘর, গভীর নলকূপ, ভিজিডি, ভিজিএফ সহ জনগণের জন্য আসা সরকারি সুবিধার কার্ড টাকার বিনিময় নিজের ইচ্ছা মতো বিক্রী করছেন। এতে প্রকৃত দরিদ্র মানুষ সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। মেঘনা তেঁতুলিয়া নদীর অভয়াশ্রমমে নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন (১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল) রাজাপুর ইউনিয়নের জেলেদের জন্য ২২৪ মে.টন চাল বরাদ্দ দেয় সরকার। বরাদ্দকৃত চাল থেকে প্রায় ৪০ মে. টন চাল চেয়ারম্যান নিজেই আত্মসাৎ করেছেন। গত ২১ মার্চ ওই চাল প্রকৃত জেলেদের মধ্যে বিতরণ না করায় জনগনের তোপের মুখে পড়ে চেয়ারম্যান। জেলে চাল বিতরণে অনিয়মের খবর পেয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বাকী চাল বিতরণ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের গোডাউন সিলগালা করে আসেন। এমন অনিয়ম ও দুর্নীতি চলমান থাকায় নিরুপায় হয়ে ইউপি সদস্যরা স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ বিধি অনুযায়ী চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে এ অনাস্থা প্রস্তাব আনতে বাধ্য হয়েছে।
অনাস্থা প্রস্তাব পাওয়ার কথা স্বীকার করে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান জানান, তদন্ত করে এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT