ভা-ারিয়া শহরের দোকান পাট বন্ধ | | ajkerparibartan.com ভা-ারিয়া শহরের দোকান পাট বন্ধ – ajkerparibartan.com
ভা-ারিয়া শহরের দোকান পাট বন্ধ

2:49 pm , March 23, 2020

ভা-ারিয়া প্রতিবেদক ॥ ভা-ারিয়ায় করোনা ভাইরাস আতংকে উপজেলা সদর শহর সাত ইউনিয়নের হাটবাজার সীমিত আকারে সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করেছে প্রশাসন। ফলে গতকাল সোমবার সকাল থেকে শহরের সমস্ত দোকান-পাটসহ সকল ধরনের মানুষ সমাগমের প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। ভা-ারিয়া পৌর শহরসহ পুরো উপজেলার জীবনযাত্রা এখন স্থবির অবস্থা বিরাজ করছে। তবে শহরের কিছু ঔষধের দোকান ও মাছ তরকারি বাজার খোলা থাকলেও তা ক্রেতা শূণ্য ।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে সূত্রে জানাগেছে,
বিকাল থেকে রাত অবধি প্রশাসন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আশু ব্যবস্থা গ্রহণে উপজেলার হাট বাজার ও মানুষের সমাগম সীমিত আকারে বন্ধে মাইকিং করে প্রচারণা চালায়। সোমবার থেকে সকল ব্যবসায়িরা হাটবাজার সম্পূর্ণ বন্ধ রাখেন। তবে কিছু ঔষধের দোকান ও কাঁচামাল এর দোকান খোলা থাকলেও একেবারে তা ক্রেতা শূণ্য অবস্থা বিরাজ করছে। এছাড়া অভ্যন্তরীণ রুটে যানবাহন চলচল না করায় সড়কগুলোতে সুনশান নিরাবতা বিরাজ করছে।
স্থানীয় মাছ ব্যবসাযি মঞ্জু হাওলাদার বলেন, সারাদিনেও কোন ক্রেতা হাটে আসে নাই। দ্যাশে করোনা আইসা আমাগো গরীব মানুষের রুটি রুজি বন্ধ করে দিয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমূল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, জনসমাগম কমাতে সীমিত আকারে হাটবাজার বন্ধ রাখা হয়েছে। এছাড়া আগামী মঙ্গলবার ও শনিবারের সাপ্তাহিক হাটও বন্ধের ঘোষাণা দেওয়া হয়েছে। আমরা প্রবাসিদের পরিবারকে তাদের স্বজনদের বাড়িতে অবস্থানের কঠোর নির্দেশনাও দিয়েছি।
ভা-ারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম মাকসুদুর রহমান, ভা-ারিয়া উপজেলায় ২৮৫ জন প্রবাসি দেশে ফিরেছেন। তবে ৫২ জনকে আমরা হোম কোয়ারেন্টে নিয়েছি। বাকি ২২৩ জনের হদিস পাওয়া যাওয়া যাচ্ছে। তিনি আরও জানান আজ সোমবার দুপুরে উপজেলা পৈকখালী ও নয়াখালী গ্রামের দুই বাড়িতে অভিযান চালানো হলেও একজন প্রবাসি ও একজন ঢাকাবাসিকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। এসময় তারা ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে একজন প্রবাসি ও একজন ঢাকাবাসি পালিয়ে যায়। এদিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা প্রবাসিদের সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রাখা হয়েছে।
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অর্থায়নে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় বরিশাল শহরের বস্তিতে দুস্থ পরিবারের মাঝে পদাতিকের হ্যান্ড স্যানিয়াটাইজার, হাত ধোয়ার সাবান ও মাস্ক বিতরন শুরু’
কোভিড-১৯ এর ধ্বংস যজ্ঞের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে পুরো মানব সভ্যতা। ডঐঙ পরামর্শ দিচ্ছে ঘরের বাইরে বের না হতে বা বের হলেও বারবার হ্যান্ডওয়াশ বা সাবান দিয়ে হাত ধুতে। কিন্তু দিনমজুর ও অন্যান্য শ্রমজীবি মানুষের পক্ষে ডঐঙ এর পরামর্শ মেনে ঘরে বসে থ্কাা কিংবা স্যানিটাইজার বা হ্যান্ডওয়াস কিনে হাত ধোয়াটা বিলাসিতার সামিল। ফলে সম্বলহীন এই অধিকারবঞ্চিত মানুষেরাই সবচেয়ে বেশি করোনা ঝুকিতে আছেন। বিজ্ঞজনেরা তো পরামর্শ দিয়েই দায় সারছেন কিন্তু উপকরনগুলো সহজলভ্য না হওয়ায় সে পরামর্শ আর বাস্তবায়িয়ত হতে পারছে না। এই দুরাবস্থায় সামাজিক দায়িত্ববোধের জায়গা থেকেই পদাতিক এই দুস্থ মানুষের মাঝে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সাবান ও মাস্ক বিতরনের উদ্যোগ নেয়। জনগনের ট্যাক্সের টাকায় উচ্চশিক্ষা নিতে আসা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্ররাও যে এই দুর্দিনে হাত পা গুটিয়ে বসে থাকতে পারে না এই উপল্বদ্ধিকে সামনে রেখে গত ১৭ মার্চ থেকে শুরু হয় পদাতিকের তহবিল সংগ্রহের কাজ। ববির শিক্ষার্থীদের মাঝ থেকে সাড়াও পাওয়া যায় বেশ। ক্যাম্পাস বন্ধ থাকার পরেও মাত্র তিনদিনে পদাতিক তার পুর্বনির্ধারিত তহবিল সংগ্রহে সমর্থ হয়। এর পর শুরু হয় স্যানিটাইজার প্রস্তুতির কাজ। আজ ২৩ মার্চ থেকে পদাতিকের স্বেচ্ছাসেবকেরা বরিশালের বিভিন্ন বস্তিতে পদাতিকের তৈরী করা স্যানিটাইজার ,মাস্ক ও সাবান বিতরন শুরু করে। স্বাস্থ্য উপকরন বিতরনের পাশাপাশি শুরু হয় জনসচেতনা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ক্যাম্পেইনিং এর কাজ।
গণমানুষের দুর্দিনে তাদের পাশে এসে দাড়ানোর জন্য ববির সকল শিক্ষার্থীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে পদাতিক( সামাজিক-সাংস্কৃতিক মঞ্চ)। আগামীতেও মানুষের দুর্দিনে ববি শিক্ষার্থীরা নিঃস্বার্থভাবে এগিয়ে আসবে এমনটাই প্রত্যাশা পদাতিকের। সবশেষে সকলকে নিরাপদে থাকতে এবং আশে পাশের মানুষকে সচেতন করতে অগ্রনী হতে আহ্বান জানানো হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT