উপজেলায় ভোটের শেষ মুহুর্তের প্রচারনায় প্রার্থীরা ॥ অনাগ্রহী ভোটাররা | | ajkerparibartan.com উপজেলায় ভোটের শেষ মুহুর্তের প্রচারনায় প্রার্থীরা ॥ অনাগ্রহী ভোটাররা – ajkerparibartan.com
উপজেলায় ভোটের শেষ মুহুর্তের প্রচারনায় প্রার্থীরা ॥ অনাগ্রহী ভোটাররা

3:32 pm , March 21, 2019

খান রুবেল ॥ আগামী ২৪ মার্চ বরিশাল সহ ৩টি জেলার ১৪টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। সে অনুযায়ী আজ ২২ মার্চ শুক্রবার মধ্য রাতে শেষ হচ্ছে প্রার্থীদের প্রচার প্রচারনা। তাই শেষ মুহুর্তে ভোটের দাবী নিয়ে ভোটারদের কাছে ছুটছেন চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তবেনির্বাচনের মাত্র একদিন বাকি থাকলেও ভোটারদের মধ্যে আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না। এদিকে ১৪ উপজেলা পরিষদে নির্বাচনের কথা থাকলেও ভোট হবে মাত্র ১২টিতে। এর মধ্যে আবার মোট ৮টি উপজেলায় শুধুমাত্র ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। অবশ্য যে ১২টি উপজেলায় ভোট যুদ্ধ হবে তার মধ্যে বরিশাল ও ঝালকাঠির ৫টি উপজেলায় চেয়ারম্যান সহ তিনটি পদেই ভোট গ্রহন হবে। ফলে অন্যান্য উপজেলার তুলনায় এ ৫টি উপজেলায় নির্বাচনী আমেজ বইছে। বরিশাল আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, ২৪ মার্চ তৃতীয় ধাপে দেশের ১২৭টি উপজেলায় পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২২ মার্চ মধ্য রাতে ওইসব উপজেলায় প্রার্থীদের প্রচার প্রচারনা শেষ হবে। এদিকে দেশের অন্যান্য উপজেলার সাথে বরিশাল, ঝালকাঠি ও ভোলা জেলার ১৪টি উপজেলায় তৃতীয় ধাপের ভোট গ্রহন হবে ২৪ মার্চ। এর মধ্যে বরিশালের ৯টি, ঝালকাঠির ৪টি ও ভোলার ১টি উপজেলা। বরিশালের যে ৯টি উপজেলা রয়েছে তার মধ্যে গৌরনদী ও আগৈলঝাড়ার চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের তিনটি পদেই একক প্রার্থী থাকায় তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। তাছাড়া ৯টি উপজেলার ৬টিতে আওয়ামী লীগ মনোনিত নৌকা প্রতীকের ৬ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হচ্ছেন। সে অনুযায়ী ৩টি উপজেলায় চেয়ারম্যান সহ ৭টি উপজেলায় ভোট গ্রহন হবে। বরিশাল সদর উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সাইদুর রহমান রিন্টু, গৌরনদীতে বর্তমান চেয়ারম্যান সৈয়দা মনিরুন নাহার মেরী, আগৈলঝাড়া উপজেলায় আব্দুল রইচ সেরনিয়াবাত, বানারীপাড়া উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যান মো. গোলাম ফারুক, মুলাদী উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম মিঠু ও বাকেরগঞ্জ উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শামসুল আলম চুন্নু পুনরায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া আগৈলঝাড়ায় মো. রফিকুল ইসলাম তালুকদার ও মলিনা রানী রায়, গৌরনদীতে মো. ফরহাদ হোসেন ও জিনিয়া আফরোজ হেলেন, বাবুগঞ্জ উপজেলায় ফারজানা বিনতে ওহাব ও বানারীপাড়ার সৈয়দা তাসমিমা হোসেন ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ঝালকাঠি জেলার ৪টি উপজেলাতেই ভোট হবে। এর মধ্যে শুধুমাত্র নলছিটি উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যানের দুটি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। এ উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। বাকি তিনটি উপজেলায় চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের তিনটি পদেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। তাছাড়া ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় শুধুমাত্র পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হচ্ছে। এ দুটি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৭ জন। যার মধ্যে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী রয়েছে। যদিও এ উপজেলায় পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে মুল প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে রয়েছেন দু’জন। সংশ্লিষ্ট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সূত্রে জানাগেছে, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২২ মার্চ মধ্য রাত থেকে প্রার্থীদের প্রচার প্রচারনা বন্ধ হবে। সেই সাথে শুরু হবে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের মহোরা। র‌্যাব, পুলিশ, এপিবিএন’র পাশাপাশি বিজিবি সদস্যরা নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করবেন। থাকবেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটও। এদিকে শেষ মুহুর্তে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। তার পাশাপাশি কোন কোন উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের নির্বাচন থেকে বসিয়ে দিতে শেষ প্রচেষ্টা চলছে তাদের। অবশ্য নির্বাচন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে উপজেলা গুলোতে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের মধ্যে উৎকন্ঠাও বাড়ছে। রয়েছে অপ্রীতিকর ঘটনার আশংকাও।বিশেষ করে বরিশালের ৩টি উপজেলায় নির্বাচনী পরিবেশ অনেকটা উত্তপ্ত। উপজেলা তিনটি হলো উজিরপুর, বাবুগঞ্জ ও হিজলা। তিনটি উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী ও দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। বিশেষ করে উজিরপুর উপজেলায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের কর্মকান্ডে উত্তেজনা বাড়ছে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে। তবে ভিন্ন চিত্র বাবুগঞ্জ ও হিজলা উপজেলায়। এই দুটি উপজেলায় আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী থাকলেও রয়েছে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী। হিজলা উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থীর বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন স্থানীয় এমপি সমর্থীত বিদ্রোহী প্রার্থী বেলায়েত হোসেন ঢালী। এরই মধ্যে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় প্রকাশ্য দ্বন্দ্ব হয়েছে। বাবুগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী কাজী এমদাদুল হক দুলালের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী মোস্তাক আহমেদ রিপন। উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশাল অংশ দুলালের পক্ষে কাজ করলেও উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার খালেদ হোসেন স্বপনের গোপন সমর্থন রয়েছে মোস্তাক আহমেদ রিপনের দিকে। মনোনয়ন না পেয়ে দলের বিপক্ষে বিদ্রোহী প্রার্থী দাড় করার পেছনে স্বপনের গোপন মিশন রয়েছে বলে অভিযোগ সংশ্লিষ্টদের। উজিরপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাচ্চু’র বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে অবস্থান নিয়েছেন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভোটের মাধ্য উত্তপ্ত করতে হাফিজুর রহমান ইকবাল সমর্থকরা আধিপত্ত বিস্তার এবং জাল ভোটের পরিকল্পনা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব মিলিয়ে তিনটি উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যকার বিরোধ ভোটের দিনে বিষ্ফোরক হয়ে দাড়িয়ে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। অপরদিকে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের মধ্যে ভোট নিয়ে উদ্বেগ, উৎকন্ঠার কমতি না থাকলেও আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না ভোটারদের মধ্যে। বিশেষ করে যেসব উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী নেই সেসব উপজেলায় ভোটের আমেজ নেই বললেই চলে। তাছাড়া ভোটের পরিস্থিতি কি হবে এবং ভোটের সুযোগ হবে কিনা তা নিয়েও অনেক ভোটারের মনে প্রশ্ন রয়েছে। তবে তার মধ্যেই সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ব পরিবেশে ভোট গ্রহনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন ও রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT