বরিশালে দক্ষ নারী ক্রিকেটার তৈরীতে গৃহবধূর প্রশিক্ষণ ক্যাম্প | | ajkerparibartan.com বরিশালে দক্ষ নারী ক্রিকেটার তৈরীতে গৃহবধূর প্রশিক্ষণ ক্যাম্প – ajkerparibartan.com
বরিশালে দক্ষ নারী ক্রিকেটার তৈরীতে গৃহবধূর প্রশিক্ষণ ক্যাম্প

3:53 pm , March 15, 2019

খান রুবেল ॥ ক্রিকেটে নারীদের অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে বরিশালে প্রথম বারের মত চালু হয়েছে নারীদের ক্রিকেট প্রশিক্ষন ক্যাম্প। কোন প্রতিষ্ঠান বা ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে নয় বরং শারমিন আক্তার লাভলী নামের সাবেক এক নারী ক্রিকেটার এই উদ্যোগ নিয়েছেন। কোচ হিসেবে নিজেই প্রশিক্ষনের মাধ্যমে নারীদের দক্ষ ক্রিকেটার হিসেবে গড়ে তুলছেন এই গৃহবধূ। এদিকে ক্রিকেট অঙ্গনে বরিশালের নারীদের এগিয়ে আসাকে সাধুবাদ জানিয়েছে ক্রীড়া সংস্থা সহ ক্রিকেট প্রেমিরা। তাদের অংশগ্রহন এ অঞ্চলের নারী ক্রিকেট অঙ্গনকে আরো শক্তিশালী করবে বলে মনে করছেন তারা। এজন্য নারী প্রশিক্ষক শারমিন আক্তার লাভলীকে প্রশিক্ষণ কাজে সার্বিক সহযোগিতার কথাও জানিয়েছেন ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তারা। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, বরিশালে রয়েছে নারীদের বিভাগীয় ক্রিকেট দল। যা নিয়ন্ত্রন করে থাকেন বিভাগীয় নারী ক্রীড়া সংস্থা। তবে টিম থাকলেও নেই নির্দিষ্ট নারী ক্রিকেটার। প্রতিযোগিতার সুযোগ আসলে বিভাগের বাইরে থেকে খেলোয়াড় ভাড়া করে আনা হচ্ছে টিম গঠনের জন্য। তবে সর্বশেষ কবে বরিশাল থেকে নারী ক্রিকেটাররা টুর্নামেন্ট বা প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে তা জানা নেই স্বয়ং ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তাদেরও। বরিশাল নারী ক্রিকেটাঙ্গনের এমন দূর্দষার জন্য নারী ক্রীড়া সংস্থার নিস্কৃয়তার পাশাপাশি নিয়মিত অনুশিলন না থাকাকেই দায়ি করছেন খেলোয়াড়রা। নারী ক্রিকেট অঙ্গনকে উজ্জিবিত করতে ক্রীড়া সংস্থা কিংবা সংশ্লিষ্টদের কোন উদ্যোগ নেই বলেও অভিযোগ তাদের। অভিযোগ থেকে পরিত্রান পেতে ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগ না থাকলেও বরিশাল নারী ক্রিকেটাঙ্গনকে জাগিয়ে তুলতে কাজ করছেন সাবেক নারী ক্রিকেটার শারমিন আক্তার লাভলী। যিনি একজন গৃহবধূ হয়েও নিজের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের দক্ষ ক্রিকেটার গড়ে তোলার চেষ্টা করছেন। এজন্য বরিশাল শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত স্টেডিয়ামের অভ্যন্তরে মেয়েদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্প তৈরী করেছেন। সপ্তাহের ৩দিন অর্থাৎ বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার প্রতিদি বিকাল ৩টা থেকে সাড়ে ৫টা পর্যন্ত মেয়েদের নিজ হাতে প্রতিক্ষণ দিয়ে সাড়া ফেলেছেন তিনি। জানাগেছে, বরিশাল নগরীর কাউনিয়া মনষাবাড়ির গলি এলাকার গৃহবধূ ক্রিকেটার রিপন এর স্ত্রী শারমিন আক্তার লাভলী ইডেন কলেজে অধ্যায়নরত অবস্থায় ঢাকার ধানমন্ডি লেডিস ক্লাবের নারী ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় ছিলেন। ওই ক্লাবের হয়ে ১৯৯৯ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত ‘লেগ স্পিনার’ হিসেবে খেলেছেন। ধানমন্ডি ক্লাবের হয়ে সেকেন্ড ডিভিশনও খেলেছেন তিনি। ক্রিকেট নিয়ে সুদুর পরিকল্পনা থাকলেও বিবাহ বন্ধন আটকে দেয় তাকে। তবে ক্রিকেট নিয়ে ভাবনা ফুরায়নি তার। স্বামী এবং পরিবারের সম্মতিতে পুনরায় ক্রিকেটাঙ্গনে ফিরেছেন লাভলী। আলাপকালে শারমিন আক্তার লাভলি বলেন, ক্রিকেট আমার ধ্যান-জ্ঞান। তাই বিয়ের পরেও ক্রিকেট নিয়ে ভেবেছি। সেই ভাবনাকে বাস্তবে রূপ দিতেই বরিশালে নারী ক্রিকেট একাডেমি করার উদ্যোগ নিয়েছি। তার আগেই গত ৭ মার্চ থেকে শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত স্টেডিয়ামে মেয়েদের ক্রিকেট প্রশিক্ষন দিচ্ছি। বর্তমানে ১৪ জন মেয়ে ক্রিকেট প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। এরা সবাই চতুর্থ থেকে ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। সপ্তাহের তিনদিন ওদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এ ক্ষেত্রে কোন পারিশ্রমিকও নেয়া হচ্ছে না। বরং আমার নিজ অর্থে কেনা ব্যাট, বল, প্যাড, গার্ড, স্টাম্প সহ অন্যান্য ক্রিকেট সামগ্রী প্রশিক্ষণের জন্য ব্যবহার করছে তারা। এ কাজে আমাকে সহযোগিতা করছেন ট্যালেন্ট হ্যান্ড ক্রিকেট একাডেমির কোচ তানিম। তিনি বলেন, বরিশালে নারী ক্রিকেট দল রয়েছে। কিন্তু ক্রিকেটারদের প্রশিক্ষণের কোন ব্যবস্থা নেই। যে কারনে আদৌ কোন দক্ষ খেলোয়াড় তৈরী হয়নি। তাই দেশের ক্রিকেটাঙ্গনে বরিশালের নারীদের কোন অবস্থান নেই। তাই বরিশাল নারী ক্রিকেট অঙ্গনকে দেশের কাছে পরিচয় করিয়ে দিতে নিজ উদ্যোগে ‘প্রমিলা ক্রিকেট একাডেমি’ খোলার চেষ্টা করছি। বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে মেয়েদের ক্রিকেটে অংশগ্রহনে উৎসাহি করতে কাজ করছি। এতে বেশ সাড়াও পেয়েছি। পর্যায়ক্রমে প্রশিক্ষণে অংশগ্রহনকারীদের নিয়ে একটি শক্তিশালী টিম গঠনের কথাও জানিয়েছেন তিনি। শারমিন আক্তার লাভলী আরো বলেন, প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের আরো প্রসার ঘটনাতে সরকারি এবং বেসরকারি পৃষ্ঠপোশক ও সুযোগ সুবিধা দরকার। কেননা স্টেডিয়ামে প্রশিক্ষনের জন্য আমাদের নির্দিষ্ট কোন জায়গা নেই। স্টেডিয়ামে মেয়েদের ড্রেসআপের জন্য আলাদা কোন ব্যবস্থাও নেই। এখনে যারা প্রশিক্ষণে আসছে তারা তৃনমুলের মেয়ে। যে কারনে ওদের ক্রিকেট সামগ্রী ক্রয় করা সম্ভব না। বিষয়গুলোতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা পেলে এ কার্যক্রমকে আরো এগিয়ে নেয়া সম্ভব বলে মনে করেন তিনি। বরিশাল বিভাগীয় নারী ক্রীড়া সংস্থার সদস্য সচিব সৈয়দা মনিরুন্নাহার মেরী বলেন, ইতিপূর্বে মেয়েদের ক্রিকেট প্রশিক্ষণের কোন ব্যবস্থা ছিলো না। যখন টিম হয় তখন বাইরে থেকে লোক এনে মেয়েদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু নিয়মিত অনুশিলন না থাকায় খেলার মান বৃদ্ধি হচ্ছে না। শারমিন আক্তার লাভলী নামের মেয়েটি প্রশিক্ষণের যে উদ্যোগ নিয়েছে সেটা প্রসংশনিয়। তবে এ বিষয়ে আমাদের জানালে আমরাও তাকে সহযোগিতা করতে পারতাম। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) এর পরিচালক ও বরিশাল বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সদস্য সচিব আলমগীর খান আলো বলেন, আমাদের বিভাগীয় নারী ক্রিকেট টিম থাকলেও খেলোয়াড়ের বড়ই অভাব। যখন কোন টিম হয় তখন খেলোয়াড় খুঁজে পাই না। জেলায় জেলায় চিঠি দিয়ে খেলোয়াড় খুঁজতে হয়। তাতেও পুর্ণাঙ্গ টিম হয় না। তাই বাধ্য হয়ে বাইরে থেকে খেলোয়াড় ভাড়া করে আনতে হয়। একজন মেয়ে ছিলো যাকে টিম লিডার করে বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানো হতো। সেই মেয়েও এখন একটি স্কুলের শারীরিক শিক্ষক হিসেবে চাকুরী করছেন। তিনি বলেন, দেশের সবখানেই এখন ক্রিকেটে নারীদের অংশগ্রহন বাড়ছে। জাতীয় পর্যায়েও আমাদের মেয়েরা বেশ ভুমিকা রাখছে। শুধু বরিশালের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। এখানে ফুটবল ও ক্রিকেটে মেয়েদের অংশগ্রহন নেই বললেই চলে। কারন প্রশিক্ষণের অভাব। ক্রিকেট বা ফুটবল দুটিতেই নিয়মিত অনুশিলনের প্রয়োজন। যার ব্যবস্থা বরিশালে নেই। তাই যে মেয়েটি প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করেছে সেটা আমাদের বরিশালের মেয়েদের জন্য কল্যানকর। বরিশাল নারী ক্রিকেট অঙ্গনকে উজ্জিবিত এবং শক্তিশালী করতে তাকে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাসও দিয়েছেন বিসিসি’র এই পরিচালক।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT