নদী বন্দরে হচ্ছে যাত্রীদের ব্যাগ চুরি | | ajkerparibartan.com নদী বন্দরে হচ্ছে যাত্রীদের ব্যাগ চুরি – ajkerparibartan.com
নদী বন্দরে হচ্ছে যাত্রীদের ব্যাগ চুরি

2:44 pm , January 23, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল নদী বন্দরে যাত্রীদের হয়রানির পর তাদের কাছ থেকে ব্যাগ চুরির ঘটনা ঘটছে অহরহ। অভিযোগ উঠেছে নদী বন্দরের সামনে থাকা যত্রতত্র ভাবে গাড়ি পার্কিং করে রাখা থ্রি হুইলার চালকরাই এই ঘটনা ঘটাচ্ছে। বিষয়টির প্রমানও মিলেছে। বৃহস্পতিবার চুরির বিষয়টি প্রমানিত হওয়ায় শাহিন নামের এক থ্রি হুইলার চালককেও আটক করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। তবে বিষয়টি নিয়ে এর আগে নৌ পুলিশ এবং থানা পুলিশকে একাধিকবার অবহিত করা হলেও তারা বিষয়টি গুরুত্ব না দেওয়ার চুরির ঘটনা একের পর এক বাড়তেই থাকে।
বরিশাল নদী বন্দরের লঞ্চ লেবাররা জানান, যাত্রীরা বরিশাল নৌ বন্দরে পৌছানোর পরেই শুরু হয় থ্রি হুইলার চালকদের দৌড়াত্ম্য। এর জোড় করে যাত্রীদের ব্যাগ টান দিয়ে নিয়ে যায়। পরে কাউকে খুঁজে পাওয়া যায় আবার অনেককে পাওয়া যায়না। বিষয়টি নিয়ে যাত্রীরা বরিশাল নদী বন্দর কর্মকর্তার কাছে অভিযোগও দেয়। কিন্তু কোনো কিছুতেই চুরি বন্ধ করা যাচ্ছিলো না।
বরিশাল নদী বন্দর কর্মকর্তা ও বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার জানান, নদী বন্দরের সামনে থ্রি হুইলার চালকরা যত্রতত্র ভাবে গাড়ি পার্কি করে থাকে। সে বিষয়েও একাধিকবার নিষেধ করা হয়েছে। পরে যাত্রীদের কাছ থেকে ব্যাগ চুরির বেশ কয়েকটি ঘটনার পর থ্রি হুইলার চালক বেশে চোরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নৌ পুলিশ সুপার এবং বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরও বিষয়টি লিখিতভাবে জানানো হয়। কিন্তু তারা কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় এই সমস্যা আরো তীব্র আকার ধারণ করে। পরে বৃহস্পতিবার এক যাত্রীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ চেক করে শাহিন নামের এক থ্রি হুইলার চালককে আটক করা হয়। যাত্রীদের যাতে আর কোনো ভোগান্তি না হয় সেজন্য নৌ বন্দর থেকে আরো জোড়দার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT